• বুধবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১৫ রাত

শ্বাস-প্রশ্বাসের জন্য কর দিতে হবে কুয়েত প্রবাসী বাংলাদেশিদের

  • প্রকাশিত ০৬:৫৭ সন্ধ্যা অক্টোবর ২৯, ২০১৮
bangladeshi
প্রবাসী বাংলাদেশি। ফাইল ছবি

তার দাবি, কুয়েতিদের ওপরে করারোপ করার আগে দেশটিতে বসবাসকারী অভিবাসীদের পক্ষে থাকা সরকারী নীতি আগে ‘শোধরাতে’ হবে।

কুয়েত প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য দুশ্চিন্তা হয়ে দাঁড়িয়েছে কুয়েতি এক সংসদ সদস্যের কর বিষয়ক একটি মন্তব্য। আর তা কার্যকর হলে, নিঃশ্বাস নিতেও কর দিতে হবে দেশটিতে থাকা প্রায় দুই লক্ষ বাংলাদেশিদের।  

কুয়েতে বসবাসকারী অভিবাসীরা নিঃশ্বাসের জন্য যে বাতাস গ্রহণ করেন তার ওপরেও কর বসানোর জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন দেশটির সংসদ সদস্য সাফা আল-হাশেম। কুয়েতের ৫০ আসন বিশিষ্ট সংসদের একমাত্র নারী সংসদ সদস্য সাফা। দেশটির ইংরেজি দৈনিক কুয়েত টাইমস'র এক প্রতিবেদনে এ খবর জানানো হয়। 

তিনি বলেন, “অভিবাসীদের সব কিছুর জন্যই অর্থ প্রদান করতে হবে, স্বাস্থ্য সেবার জন্য, অবকাঠামোগত এবং আবারও বলছি, তারা এখানে নিঃশ্বাসের জন্য যে বাতাস নেয় তার জন্যও।”

অভিবাসীদের চাকরিগুলো প্রতিস্থাপন করে সে জায়গায় কুয়েতিদের চাকরির ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণ বিষয়ক কমিটির বৈঠক শেষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। 

আগে থেকেই সরকারের রাজস্ব নীতির বিরোধিতা করে আসছেন সাফা আল-হাশেম। সংবাদ সম্মেলনে তিনি চিৎকার করে বলেন, “এটা কার্যকর করতে হলে আমার লাশের ওপর দিয়ে করতে হবে।” 

তার দাবি, কুয়েতিদের ওপরে করারোপ করার আগে দেশটিতে বসবাসকারী অভিবাসীদের পক্ষে থাকা সরকারী নীতি আগে ‘শোধরাতে’ হবে। দেশটিতে কুয়েতিদের সংখ্যা ১.৪ মিলিয়ন, অপরদিকে অভিবাসীদের সংখ্যা ৩.২ মিলিয়ন। 

সাফা বলেন, সরকারকে আগে ১৪ হাজার বেকার কুয়েতির চাকরির ব্যবস্থা করতে হবে এবং ১ লক্ষ ১০ হাজার নিরক্ষর অভিবাসী সংক্রান্ত সমস্যার সমাধান করতে হবে। 

অভিবাসীরা কেন কুয়েতে ‘প্রথম স্থানে’ আছে তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন এই সংসদ সদস্য।