• সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৫:১৫ সন্ধ্যা

সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী

  • প্রকাশিত ০৪:৩১ বিকেল নভেম্বর ১, ২০১৮
ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী
ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

অনুষ্ঠানে দস্যুরা ৫৮টি অস্ত্র এবং ৩ হাজার ৩৫১ রাউন্ড গোলাবারুদও জমা দেয়

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা ৫ মিনিটে গণভবন থেকে এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ ঘোষণা দেন তিনি। ভিডিও কনফারেন্সটি ১১টায় শুরু হয়ে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত চলেছে। 

সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত ঘোষণা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বনদস্যুরা এখন আত্মসমর্পন করে স্বাভাবিক জীবন-যাপন করছে। তারা অস্বাভাবিক জীবন থেকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছে। পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করছে। তাদের জীবন-জীবিকার বিষয়টি এখন সরকার দেখছে। ইতোপূর্বে আত্মসমর্পনকৃত দস্যুদের প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা করে অনুদান প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া তারা যে কাজ করতে আগ্রহী, তাদেরকে সে সব কাজে সহায়তার মাধ্যমে কর্মসংস্থান তৈরি করে দেওয়া হচ্ছে।

ছয়টি দস্যু বাহিনীর ৫৪ সদস্য'র আত্মসমর্পন উপলক্ষে বাগেরহাটর শেখ হেলাল উদ্দিন স্টেডিয়ামে এ ভিডিও কনফারেন্স’র আয়োজন করা হয়। 

পরে ৬ বাহিনীর ৫৪ জন সদস্য বহস্পতিবার দুপুর বাগরহাটের শেখ হেলাল উদ্দিন স্টেডিয়ামে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের হাতে আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদ জমা দিয়ে আত্মসমর্পণ করেন। অনুষ্ঠানে দস্যুরা ৫৮টি অস্ত্র এবং ৩ হাজার ৩৫১ রাউন্ড গোলাবারুদও জমা দেয়। 

আত্মসমর্পণকৃত দস্যু বাহিনীগুলো হলো- আনায়ারুল, তৈইবুর, শরীফ, ছাত্তার, সিদ্দিক ও আল আমিন বাহিনী। অনুষ্ঠানে ইতোপূর্ব আত্মসমর্পণকৃত দস্যুদের প্রত্যককে এক লাখ টাকা করে অনুদান দেওয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী আরও জানান, বনদস্যুদের আত্মসমর্পণে বিভিন্ন উপকূলীয় এলাকায় জেলেরা আতংকমুক্ত হয়ে মাছ ধরতে পারবে। এজন্য তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং র্যাীব ও পুলিশসহ সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “এ পর্যন্ত সুন্দরবনসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ৩২টি বাহিনী আত্মসমর্পণ করেছে। এখন জেলেরা মাছ ধরছে বিনা বাঁধায়। র্যা ব, পুলিশ, কোস্টগার্ড এবং বিজিবিক শক্তিশালী করা হয়েছে। ফলে সুন্দরবনে এখন শান্তির সু-বাতাস বইতে শুরু করেছে।”

প্রসঙ্গত, এর আগেও বিভিন্ন সময় ২৬টি দস্যু বাহিনীর ২৭৪ জন সদস্য আত্মসমর্পণ করেছে। আত্মসমর্পণের সময় দস্যুরা ৪০৪টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ জমা দিয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, র‍্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহমদসহ র‍্যাব, পুলিশ ও প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।