• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৪ রাত

নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে অ্যাকশন এইড এর মেলা অনুষ্ঠিত

  • প্রকাশিত ০৪:০৭ বিকেল ডিসেম্বর ৩, ২০১৮
অ্যাকশন এইড বাংলাদেশ
অ্যাকশন এইড বাংলাদেশের এক্সিকিউটিভ বোর্ড মেম্বার অধ্যাপক প্রশান্ত ত্রিপুরা ও রাইসা গিয়াস এই মেলার উদ্বোধন করেন। ছবি: সৌজন্য

 ‘ইয়ং ফেমিনিস্ট নেটওর্য়াক’ এই অক্টিভিজম মেলার আয়োজন করে

নারীর প্রতি সহিংসতার বিরুদ্ধে ১৬ দিনব্যাপী কার্যক্রমের অংশ হিসাবে ‘অ্যাকশন এইড বাংলাদেশ’-এর ইয়ুথ হাব ‘গ্লোবাল প্লাটফর্ম বাংলাদেশ’-এর সহায়তায় ‘ইয়ং ফেমিনিস্ট নেটওর্য়াক’ দুই দিনব্যাপী অক্টিভিজম মেলার আয়োজন করে। ঢাকার গুলশানে গ্লোবাল প্লাটফর্ম বাংলাদেশ'এর প্রাঙ্গনে ৩০ নভেম্বর ও ১ ডিসেম্বরআয়োজিত এই মেলার এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল: নারীর প্রতি সহিংসতায় রইবনা মোরা নিরব, কর্মক্ষেত্রের সহিংসতায় হব মোরা সরব।

৩০ নভেম্বর অ্যাকশন এইড বাংলাদেশের এক্সিকিউটিভ বোর্ড মেম্বার অধ্যাপক প্রশান্ত ত্রিপুরা ও রাইসা গিয়াস ফিতা কেটে দু দিনব্যাপী এই মেলার উদ্বোধন করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অ্যাকশন এইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবির,  ডেপুটি ডিরেক্টর ফারিয়া চৌধুরী ও গ্লোবাল প্লাটফর্ম বাংলাদেশের ম্যানেজার আনসারুল হক।

আয়োজক ‘ইয়ং ফেমিনিস্ট নেটওয়ার্ক’-এর স্বেচ্ছাসেবক সদস্যদের উদ্দেশ্যে অধ্যাপক প্রশান্ত ত্রিপুরা বলেন, “ তরুণদের এই ধরণের আয়োজন নারীদের প্রতি বিদ্যমান বৈষম্যের বিরুদ্ধে লড়াইকে এগিয়ে নিয়ে যাবে"।

‘ইয়ং ফেমিনিস্ট নেটওয়ার্ক’এর কার্যক্রম সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে অ্যাকশন এইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবির বলেন, "এই নেটওর্য়াকের কার্যক্রম এর সাথে জড়িত তরুণদের স্বপ্ন দেখাচ্ছে একটি সমতাভিত্তিক পৃথিবীর জন্য"।

বিষয়ভিত্তিক প্যানেল আলোচনার পাশাপাশি আয়োজন করা হয় তরুণ আলোকচিত্রীদের ছবি প্রদর্শনী। ছবি: সৌজন্য দুইদিনের এই আয়োজনে মেলায় ইয়ং ফেমিনিস্ট নেটওর্য়াক এর সদস্যরা বিভিন্ন রকমের স্টলের মাধ্যমে তাদের কাযক্রম প্রদর্শন করে। বিষয়ভিত্তিক প্যানেল আলোচনার পাশাপাশি আয়োজন করা হয় তরুণ আলোকচিত্রীদের ছবি প্রদর্শনী ও সংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের। মেলার প্রথম দিন প্যানেল আলোচনার বিষয় ছিল "কর্মক্ষেত্রে শ্রম মানদণ্ড এবং নারী ও পুরুষের সমতা"। আলোচকরা কর্মক্ষেত্রে বিদ্যমান শ্রম বৈষম্য, আইনের প্রয়োগ ও তরুণদের ভুমিকা নিয়ে আলোকপাত করেন। দ্বিতীয় দিনের প্যানেল আলোচনার বিষয় ছিল, ‘সেক্সুয়াল অ্যান্ড রিপ্রোডাক্টিভ হেলথ রাইট’।

শনিবার (১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় এই মেলার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয় ফটোগ্রাফি প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরনের মধ্যে দিয়ে।