• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৮ রাত

ভিকারুননিসা শিক্ষার্থীর 'আত্মহত্যার' প্রতিবাদে ২য় দিনের বিক্ষোভ চলছে

  • প্রকাশিত ১২:৪৭ দুপুর ডিসেম্বর ৫, ২০১৮
ভিকারুননিসার শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা
ছবি: মেহেদি হাসান/ ঢাকা ট্রিবিউন

শিক্ষার্থীর এ সময় ‘তোমরা ক্ষমা করোনি, আমরা ক্ষমা করবো না’, ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’, ‘অরিত্রী হত্যার বিচার চাই’, ‘সইবো না, সইবো না, বাবার অপমান সইবো না’, ‘No student deserve to be insulted’, ‘প্রত্যেকটি আত্মহত্যায় কি একটি হত্যা নয়?’, ‘Cheating এর Punishment মৃত্যু কবে থেকে?’ ইত্যাদি নানা স্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন

সহপাঠীর ‘আত্মহত্যার’ ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত ও সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে এখনও বিক্ষোভ করছেন ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা। 

আজ বুধবার সকাল ৯টা থেকে পরীক্ষা বর্জন করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির বেইলি রোড ক্যাম্পাসের ১ নম্বর গেটের সামনে শিক্ষার্থীরা অবস্থান নেন।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের দাবি, মঙ্গলবার মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর দেয়া আশ্বাস অনুযায়ী তিন দিনের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট জমা দিয়ে দোষীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে। 

শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি অভিভাবকবৃন্দও প্রতিষ্ঠানটির প্রিন্সিপাল ও গভর্নিং বডির পদত্যাগ দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন। তারা এ ঘটনাকে হত্যাকাণ্ড উল্লেখ করে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

শিক্ষার্থীর এ সময় ‘তোমরা ক্ষমা করোনি, আমরা ক্ষমা করবো না’, ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’, ‘অরিত্রী হত্যার বিচার চাই’, ‘সইবো না, সইবো না, বাবার অপমান সইবো না’, ‘No student deserve to be insulted’, ‘প্রত্যেকটি আত্মহত্যায় কি একটি হত্যা নয়?’, ‘Cheating এর Punishment মৃত্যু কবে থেকে?’ ইত্যাদি নানা স্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন।

এর আগে মঙ্গলবার দিনভর ভিকারুননিসার বেইলি রোড ক্যাম্পাসের সামনের সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা।

উল্লেখ্য যে, সোমবার (৩ ডিসেম্বর) দুপুরে শান্তি নগরের নিজ বাসায় আত্মহত্যা করেন ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী। ওই শিক্ষার্থীর পরিবারের দাবি, অরিত্রীর বিরুদ্ধে ফাইনাল পরীক্ষায় নকলের অভিযোগ তুলে তার বাবাকে ডেকে পাঠায় স্কুল কর্তৃপক্ষ। পরে বাবাকে জানানো হয় তার মেয়েকে টিসি দেওয়া হবে। এ সময় প্রতিষ্ঠানটির প্রিন্সিপাল ও ভাইস-প্রিন্সিপাল এই কিশোরীর সামনে তার বাবাকে অপমান করেন। টিসি দেওয়ার হুমকি ও বাবাকে অপমান সইতে না পেরে সে আত্মহত্যা করেছে বলে তার পরিবার অভিযোগ করেছে।