• বুধবার, নভেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:৩৭ বিকেল

বিএনপির মঈন খানের গাড়িবহরে হামলার অভিযোগ

  • প্রকাশিত ০৭:৪৫ রাত ডিসেম্বর ১১, ২০১৮
ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন
ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় বহরের ১০টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও ৪টি মোটরসাইকেল লুট হয়। এ সময় ঘোড়াশাল পৌর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন ভূঁইয়াসহ ১০ জন আহত হয়েছেন।

নরসিংদী-২ (পলাশ ও সদরের একাংশ) আসনে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর সময় বিএনপির প্রার্থী ড. আবদুল মঈন খানের গাড়িবহরে স্থানীয় যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন। 

আজ মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার আমদিয়া ইউনিয়নের বেলাব বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতীক পাওয়ার পর মঙ্গলবার দুপুরে  নিজের বাবা-মায়ের কবর জিয়ারত করে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন ড. আবদুল মঈন খান। বিকেল ৪টার দিকে অর্ধশতাধিক মোটরসাইকেল ও গাড়ি নিয়ে বেলাব বাজার এলাকা পথসভা করতে যান তিনি। এসময় স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছাও মিয়ার নেতৃত্বে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ৩০ থেকে ৪০ জন নেতাকর্মী লাঠিসোটা নিয়ে গাড়ি বহরে হামলা চালায়। 

উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় বহরের ১০টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও ৪টি মোটরসাইকেল লুট হয়। এ সময় ঘোড়াশাল পৌর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন ভূঁইয়াসহ ১০ জন আহত হয়েছেন।

এ বিষয়ে কথা বলতে ছাও মিয়ার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে আমদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল্লাহ ইবনে রহিদ মিঠু বলেন, বিএনপির প্রার্থী মঈন খান নরসিংদী থেকে তার ভাড়াটে সন্ত্রাসী নিয়ে  বেলাব বাজারে আওয়ামী লীগের দুটি নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছেন। তাদের বহরে হামলার বিষয়টি অপপ্রচার।  

এ বিষয়ে পাঁচদোনা পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) ইউসুফ মিয়া বলেন, বিকেলে মেহেরপাড়ায় বিএনপির লোকজন মিছিল বের করা নিয়ে আওয়ামী লীগের লোকজনের সঙ্গে তর্কবিতর্ক হয়েছে। কিন্তু আমদিয়ার বেলাব বাজারের ঘটনাটি তার জানা নেই।