• বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ২৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৪২ রাত

'ভোট কারচুপি' থামাতে ইসি'র হস্তক্ষেপ চায় বিএনপি

  • প্রকাশিত ০৩:৩১ বিকেল ডিসেম্বর ৩০, ২০১৮
বিএনপি

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান স্বাক্ষরিত একটি চিঠি প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) কাছে জমা দেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল

বিএনপি অভিযোগ করেছে, যে ২৫০ টি আসনে বিএনপি অংশগ্রহণ করেছে তার প্রতিটিতেই বিএনপি প্রার্থী এবং তাদের এজেন্টদের হয়রানি করা হয়েছে এবং অনেক ক্ষেত্রেই তাদের উপর শারীরিক আক্রমন চালানো হয়েছে। বিএনপির পক্ষ থেকে পুলিশের অসহযোগিতার অভিযোগও তোলা হয়েছে।

রবিবার বিকালে এ বিষয়ে অভিযোগ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান স্বাক্ষরিত একটি চিঠি প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) কাছে জমা দেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল।

চিঠিতে বলা হয়, ১৫০ টিরও বেশী আসনে শনিবার (৩০ ডিসেম্বর) রাতেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের সহায়তায় আগে থেকেই নৌকা প্রতীকে সিল মারা হয়েছে।    

অভিযোগে আরো বলা হয় তাদের প্রার্থীদের এজেন্ট বের করে দেওয়ার পাশাপাশি তাদের অনেককেই গ্রেফতার করা হয়েছে এমনকি, ভোটারদেরও জোরপূর্বক কিছু প্রার্থীকে ভোট দিতে বাধ্য করা হচ্ছে।

এছাড়াও, ভোটকেন্দ্রের কাছাকাছি বিএনপিকে কোন নির্বাচনী কেন্দ্র স্থাপন করতে দেওয়া হয়নি বলেও অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

অভিযোগ দাখিলের পর বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল সাংবাদিকদের বলেন, "২২১ টি আসনে পোলিং এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। আমরা আগেই বলেছি দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। এসব ঘটনা তারই প্রমাণ"।