• বুধবার, নভেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:৪৩ বিকেল

সাতক্ষীরার ৪ আসনে ২২ প্রার্থীর জামানত হারাচ্ছেন ১৭ জন

  • প্রকাশিত ১১:৩৮ সকাল জানুয়ারী ১, ২০১৯
সাতক্ষীরা

‘প্রদত্ত  ভোটের ৮ ভাগের কম ভোট পাওয়ায় এসব প্রার্থীরা তাদের জামানত হারাবেন’

সাতক্ষীরার চারটি আসনের ২২ প্রার্থীর মধ্যে জামানত হারাচ্ছেন ১৭ জন। প্রদত্ত ভোটের ৮ ভাগের কম ভোট পাওয়ায় এসব প্রার্থীরা তাদের জামানত হারাবেন বলে জানিয়েছেন জেলা নির্বাচন অফিসার নাজমুল কবীর।এরফলে সাতক্ষীরার চারটি আসনে ২২জন প্রার্থীর মধ্যে ১৭ জন প্রার্থী তাদের জামানত রক্ষা করতে পারবেন না।

সাতক্ষীরা-১ আসনে মোট ভোটের সংখ্যা ৪ লাখ ২৩ হাজার ০৭৩। এর মধ্যে ভোট দিয়েছেন ৩ লাখ ৫৪ হাজার ৮১০ জন। বাতিল ভোট সংখ্যা ১ হাজার ৯৩০। জামানত রক্ষা করতে হলে কমপক্ষে এখানে ৪৪ হাজার ৩৫২ ভোট পেতে হবে। কিন্তু এ পরিমাণ ভোট না পাওয়ায় এ আসনে জামানত হারাবেন বিএনপি’র হাবিবুল ইসলাম হাবিব (১৭৪৫৫ ভোট), জাতীয় পাটির সৈয়দ দিদার বখত (৯৪৭ ভোট), ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের এফএম আসাদুল হক (১৭৪৮ ভোট), বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির মো. আজিজুর রহমান (১৯২ ভোট), ন্যাশনাল পিপলস পাটি-এনপিপি’র মো. আব্দুর রশিদ (১০১ ভোট) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী সরদার মুজিব (৩৭৪ ভোট)।

সাতক্ষীরা-২ (সদর) আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ৬৫ হাজার ২৪৬ জন। এর মধ্যে ভোট দিয়েছেন ১ লাখ ৮৮ হাজার ১৭২ জন। এই আসনে ইভিএম থাকায় কোনও ভোট বাতিল না হওয়ায় সব ভোটই বৈধতা পায়। এ আসনে জামানত ধরে রাখতে প্রয়োজন ২৩ হাজার ৫২২ ভোট। ফলে কাক্সিক্ষত ভোট না পাওয়ায় এ আসনে জামানত হারাবেন জাতীয় পার্টির শেখ মতলুব হোসেন লিয়ন (১৫০৮ ভোট), ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের মুফতি রবীউল ইসলাম (১৩৫৫ ভোট), বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদের নিত্যানন্দ সরকার (১২৩৮ ভোট) এবং ন্যাশনাল পিপলস পার্টি-এনপিপি’র মো. জুলফিকার রহমান (৭৪৯ ভোট)।

সাতক্ষীরা-৩ (আশাশুনি-দেবহাটা-কালিগঞ্জ আংশিক) আসনে মোট ভোটার ৪৩লাখ ৮৭ হাজার ৩৩৭। এর মধ্যে ভোট দিয়েছেন ৩ লাখ ৩৩ হাজার ১১৮ জন। বাতিল ভোট সংখ্যা ২ হাজার ৮৯৭। এ আসনে জামানত রক্ষার জন্য দরকার ৪১ হাজার ৬৪০ ভোট। বিধি অনুযায়ী কাক্সিক্ষত ভোট না পাওয়ায় জামানত হারাবেন বিএনপির ডা. শহীদুল আলম (২৪৬৭১ ভোট) এবং ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের মো. ইসহাক আলী সরদার (২৫৭৯ ভোট)।

সাতক্ষীরা-৪ (শ্যামনগর-কালিগঞ্জ আংশিক) আসনে মোট ভোটার ৪৩লাখ ৮৭ হাজার ৩৩৭। আসনে প্রদত্ত ভোটের সংখ্যা ২ লাখ ৮৫ হাজার ৯৯২। বাতিল ভোট সংখ্যা ২ হাজার ১। এ আসনে জামানত রক্ষায় প্রয়োজন ৩৫ হাজার ৭৪৯ ভোট। ফলে কাক্সিক্ষত সংখ্যক ভোট না পাওয়ায় বিএনপির গাজী নজরুল ইসলাম (৩০৪৮৬ ভোট), জাতীয় পার্টির মো. আব্দুস সাত্তার মোড়ল (৫০৪ ভোট), ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের মো. আব্দুল করিম (৩৩২৪), বিকল্পধারা বাংলাদেশের এইচএম গোলাম রেজা (১১২০০ ভোট) এবং প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দল-পিডিপি’র মো. রবিউল ইসলাম জোয়াদ্দার (৯০ ভোট)।