• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:২৮ সকাল

বগুড়ায় নির্বাচনী সহিংসতায় আহত আওয়ামী লীগ নেতার মৃত্যু

  • প্রকাশিত ০৭:২৩ রাত জানুয়ারী ২, ২০১৯
বগুড়া নিহত আওয়ামী লীগ নেতা
নিহত আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি সদস্য নাজমুল হুদা ডুয়েল এবং যুবলীগ নেতা আজিজুল ইসলাম। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

দুপুরে তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালের আইসিইউ থেকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় আনা হয়েছিল

বগুড়ার কাহালুতে নির্বাচনী সহিংসতায় গুরুতর আহত ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ইউপি সদস্য নাজমুল হুদা ডুয়েল (৩৮) বুধবার (২ জানুয়ারি) বিকেলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন। দুপুরে তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালের আইসিইউ থেকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় আনা হয়েছিল। একই হামলায় ঘটনাস্থলেই যুবলীগ নেতা আজিজুর রহমান (২৮) মারা যান। 

এ ঘটনায় আজিজুরের ভাই জাহিদুর রহমান কাহালু থানায় ২১ জনের নাম উল্লেখ সহ ১৭১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। পুলিশ এজাহারভুক্ত তিনজনকে গ্রেফতার করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত রবিবার (৩০ ডিসেম্বর) বেলা ১১টার দিকে বাগইল কেন্দ্রে ভোট দেওয়ার পর পাইকড় ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান, ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আওয়ামী লীগ সভাপতি নাজমুল হুদা ডুয়েল ও একই দলের মাহবুবর রহমান কেন্দ্রের কাছে বসে গল্প করছিলেন। এ সময় তাদের পাশ দিয়ে আসামিরা যাচ্ছিলেন। তারা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে ভোট সম্পর্ক বিরূপ মন্তব্য করেন। এর প্রতিবাদ করলে আসামিরা আজিজুর, ডুয়েল ও মাহবুবকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত এবং লাঠিসোটা দিয়ে বেদম মারপিট করে। আহত তিনজনকে কাহালু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে চিকিৎসক আজিজুরকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে দু’জনকে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ডুয়েল হাসপাতালের আইসিইউতে ছিলেন। 

কাহালুর পাইকড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা মিঠু চৌধুরী জানান, ডুয়েলের অবস্থার অবনতি হওয়ায় বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে তাকে হেলিকপ্টারে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে তিনি সেখানে মারা যান। 

তিনি আরও জানান, ময়নাতদন্ত ও সকল আইনি প্রক্রিয়া শেষে ডুয়েলের লাশ বগুড়ার কাহালুর বাগইল গ্রামের বাড়িতে আনা হবে। 

এদিকে, সরকারদলীয় এই দুই নেতার খুনের পর এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

কাহালু থানার ওসি শওকত কবির জানান, ডুয়েলের মৃত্যুর ঘটনায় নতুন করে এজাহার করতে হবে না। ইতোমধ্যে মামলার আসামি মকবুল হোসেন, বেঞ্জার রহমান ও মিনহাজকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা সবাই বিএনপির নেতাকর্মী। অন্য আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।