• রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২৪ রাত

সুন্দরবনে বাঘের সাথে লড়াই করে ফিরে এলেন মাসুম

  • প্রকাশিত ১০:২৫ রাত জানুয়ারী ২, ২০১৯
সুন্দরবন
বাঘের সাথে লড়াই করে ফিরে আসা মাসুম। ছবি: ইউএনবি

চিৎকার দিয়ে বাঘটিকে লাথি মারলে পা ছেড়ে হাতে থাবা দিয়ে তাকে বনের মধ্যে নিয়ে যায় বাঘটি

সুন্দরবনে রয়েল বেঙ্গল টাইগারের সাথে লড়াই করে জীবিত ফিরে এসেছেন মাসুম হাওলাদার নামে (৩০) এক মৎস্যজীবী। বাঘের থাবায় ক্ষতবিক্ষত মাসুমকে বুধবার (২ জানুয়ারি) বিকেলে বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিন দুপুরে সুন্দরবন পূর্ব বিভাগে শেলা নদীর ধানসাগর স্টেশনের তাম্বুলবুনিয়া এলাকায় বাঘ ও মানুষের মাঝে এ লড়াইয়ের ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা ইউএনবি।

বাঘের কবলে পড়ে বেঁচে যাওয়া মাসুম শরণখোলা উপজেলার উত্তর রাজাপুর গ্রামের আব্দুল জলিল হাওলাদারের ছেলে।

মাসুমের বড় ভাই জাহিদুল জানান, মাছ ধরতে ধানসাগর স্টেশন থেকে অনুমতি নিয়ে তারা দুই ভাই একটি নৌকাসহ সকাল ৯টার দিকে বনে প্রবেশ করেন। দুপুর দেড়টার দিকে মাসুম তাম্বুলবুনিয়া এলাকায় শেলা নদীর চরে জাল ফেলে মাছ ধরছিলেন। এসময় হঠাৎ একটি বাঘ মাসুমের ডান পায়ে থাবা বসায়। মাসুম চিৎকার দিয়ে বাঘটিকে লাথি মারলে পা ছেড়ে হাতে থাবা দিয়ে তাকে বনের মধ্যে নিয়ে যায় বাঘটি। পরে মাসুমের সাথে বাঘটির ধস্তাধস্তি চলে।

এসময় জাহিদুলের চিৎকারে আশপাশের চারজন জেলে ছুটে এসে সবাই মিলে বনের মধ্যে বাঘটিকে ধাওয়া দেন। এক পর্যায়ে জাহিদুলের হাতে থাকা বৈঠার আঘাত পেয়ে বাঘটি মাসুমকে ফেলে বনের মধ্যে চলে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

জাহিদুলের ভাষ্য অনুযায়ী, পূর্ণবয়স্ক বাঘটির দৈর্ঘ্য আনুমানিক ১০ ফুট। বাঘটি কেয়াবনের মধ্য দিয়ে শেলা নদীর চরে চলে এসে  সেখানেই শিকারের জন্য অপেক্ষা করছিল।

মাসুমকে বাঘের মুখ থেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসা জেলেদের মধ্যে হাবিবুর রহমান খলিফা জানান, তারা কাছাকাছি মাছ ধরছিলেন। এসময় চিৎকার শুনে তারা কয়েকজন ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং বাঘটিকে ধাওয়া দেন।

শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রিপন নাথ জানান, মাসুমের শরীরের বিভিন্ন স্থান ক্ষতবিক্ষত হয়েছে। তবে তার অবস্থা আশঙ্কামুক্ত।

সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. মাহামুদুল হাসানের তথ্য মতে, ২০০১ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত সুন্দরবনে ৩৫টি বাঘের প্রাণহানি ঘটেছে। এর মধ্যে দুস্কৃতিকারীদের হাতে ১০টি, লোকালয়ে ঢুকে পড়লে জনতার হাতে ১৪টি, বার্ধ্যকজনিত কারণে ১০টি এবং ২০০৭ সালের সিডরে একটি বাঘ মারা যায়। এসময়ে বাঘের পাল্টা আক্রমণে প্রায় ৩০০ জেলে, বাওয়ালী, মৌয়াল এবং গ্রামবাসী মারা গেছেন।