• বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৯ রাত

র‍্যাগিং-এর কারণে বশেমুরবিপ্রবি'র ৬ শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কার

  • প্রকাশিত ০৬:৩০ সন্ধ্যা ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৯
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

বশেমুরবিপ্রবি'র প্রক্টোরাল বডির জরুরী বৈঠক থেকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়

গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দু’ শিক্ষার্থীকে র‍্যাগিংয়ের অভিযোগে ইলেকট্রিনিক্স অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই) বিভাগের ৬ শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

আজ সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টোরাল বডির জরুরী বৈঠক থেকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। 

বহিস্কৃত শিক্ষার্থীরা হলেন ইটিই বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র ঢাকার কোরনীগঞ্জের মোঃ নুরুল হকের ছেলে মোঃ শিপন আহম্মেদ, নারায়নগঞ্জের আড়াইহাজারের তোফাজ্জেল হোসেনের ছেলে মোঃ শাহিন মিয়া, টাঙ্গাইলের নাগরপুরের মোঃ আব্দুল হালিমের ছেলে নাদিম ইসলাম, শেরপুরের নাকলীর তপন কুমার ধরের ছেলে হৃদয় কুমার ধর, ভোলা সদরের সুধাংশু ভূষন হালদারের চেলে তুর্য্য হাওলাদার ও ফরিদপুর জেলার মধুখালীর মোঃ আসাদুজ্জামান খানের ছেলে আশিকুজ্জামান লিমন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোঃ মাহবুবুল হক জানান, আজ সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর কার্যালয়ে প্রক্টোরিয়াল বডি ইলেকট্রিনিক্স অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন (ইটিই) বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোঃ শাহজাহানও কৃষি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আনিসুজামানকে নিয়ে জরুরী বৈঠকে বসেন। বৈঠকে সাক্ষ্য প্রমান ও তথ্যের ভিত্তিতে ইটিই বিভাগের ৬ শিক্ষার্থী দোষী প্রমানিত হয়। প্রক্টোরাল বডি ওই ৬ শিক্ষার্থীকে আজীবন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত গ্রহন করে।

প্রক্টর অশিকুজ্জামান ভূইয়া জানান, গত ২ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৭ টা থেকে রাত ১২ টা পর্যন্ত ইলেকট্রিনিক্স অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভোগের ৬ শিক্ষার্থী কৃষি বিভাগের ১ম বর্ষের দু’ শিক্ষার্থীকে ( মোঃ রাজেশ হোসেন শিথিল ও মাহামুদ হাসান) শারীরিক ও মানসিকভাবে টর্চার করে র‍্যাগিং-এর ঘটনা ঘটায়। পরে এটির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছেড়ে দিলে ভাইরাল হয়। বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নজরে আসে। সোমবার বৈঠক বসিয়ে ঘটনার সত্যতা পাওয়ার পর ৬ শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিস্কার করা হয়। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ৬ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা দায়েরের সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়েছে। এখন মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।