• শুক্রবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৬ রাত

বাণিজ্যিক কোচিং সেন্টারে থাকতে পারবেন না শিক্ষকরা

  • প্রকাশিত ০৬:৪০ সন্ধ্যা ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৯
কোচিং সেন্টার
সারাদেশে গড়ে উঠেছে অজস্র কোচিং সেন্টার। ছবি: রাজীব ধর/ঢাকা ট্রিবিউন

২০১২ সালে প্রণীত এক সরকারি নীতিমালায় স্কুলের সময়ে শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশনিও বন্ধ করা হয়

সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্যে জড়িত হওয়া বন্ধ করে সরকার ঘোষিত নীতিমালা বৈধ ঘোষণা করেছে হাইকোর্ট।

পৃথক রিট আবেদনের শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেয় বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা ইউএনবি।

 এর আগে ২৭ জানুয়ারি রিট ও এ সংক্রান্ত রুলের শুনানি শেষে আদালত রায় দেয়ার জন্য ৭ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেছিল।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মোখলেছুর রহমান বলেন, আজকের রায়ের ফলে কোনো শিক্ষক বাণিজ্যিকভাবে পরিচালিত কোনও কোচিং সেন্টারের সাথে সরাসরি যুক্ত হতে পারবেন না।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ২০ জুন ‘শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধ নীতিমালা-২০১২’ ঘোষণা করে সরকার।

এ নীতিমালা অনুযায়ী, একজন শিক্ষক তার প্রতিষ্ঠান প্রধানের কাছ থেকে পূর্বানুমতি নিয়ে এক দিনে অন্য প্রতিষ্ঠানের সর্বোচ্চ ১০ জন শিক্ষার্থীকে পড়াতে পারবেন। সেই সাথে তাকে শিক্ষার্থীদের স্কুল প্রধানকেও এ বিষয়টি জানাতে হবে।

নীতিমালায় স্কুলের সময়ে শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশনিও বন্ধ করা হয়।