• বুধবার, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:৪৯ দুপুর

এলজিআরডি মন্ত্রী: বিএনপিকে জনসম্পৃক্ততা তৈরি করতে নির্বাচনে আসতে হবে

  • প্রকাশিত ০৪:৫৮ বিকেল ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৯
স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম
সোমবার দুপুরে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম। ছবি: মনোজ সাহা/ঢাকা ট্রিবিউন

'বিএনপিকে নির্বাচনে আনার জন্য আমাদের পক্ষ থেকে বিভিন্নভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে'

'জনবিচ্ছিন্ন' বিএনপিকে জনসম্পৃক্ততা তৈরি করতে নির্বাচনে আসতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম।

সোমবার দুপুরে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, "বিএনপিকে নির্বাচনে আনার জন্য আমাদের পক্ষ থেকে বিভিন্নভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। আমাদের দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের তাদের নির্বাচনে অংশ গ্রহনের আহবান জানিয়েছেন। তাদের যদি কোন কথা থাকে তা বলার জন্য তিনি বলেছেন। এ ব্যাপারে আমাদের উদ্যোগের কোন অভাব নেই। নির্বাচনে আসা না আসা বিএনপির রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত। তবে, জনবিচ্ছিন্ন বিএনপিকে জনসম্পৃক্ততা তৈরি করতে নির্বাচনে আসতে হবে।"

মন্ত্রী আরো বলেন, "স্থানীয় সরকার নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । দেশে এখন একটি শান্ত, সুন্দর পরিবেশ বিরাজ করছে। দেশের নির্বাচন কমিশন এখন অত্যন্ত শক্তিশালী। নিরপেক্ষভাবে নির্বাচন করার স্বক্ষমতা নির্বাচন কমিশনের আছে বলে তারা দাবি করেছে। আমরা নিজেরাও লক্ষ্য করছি যে, নির্বাচন পরিচালনার জন্য আইন শৃংখলা বাহিনীসহ সামগ্রিকভাবে সব রকম ব্যবস্থা নির্বাচন কমিশন গ্রহণ করেছে। বিএনপি নিজেরা নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবে না। অবার অন্যরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছে। আমি মনে করি এর মধ্যদিয়ে বিএনপি অত্যন্ত নির্বুদ্ধিতার পরিচয় দিয়েছে। দেশ, জাতি ও মানুষের প্রতি যদি একটি সংগঠনের আন্তরিকতা এবং ভালোবাসা থাকে তাহলে স্বাভাবিকভাবে এ সমস্ত স্থানীয় সরকার নির্বাচনে তাদের অংশগ্রহণ বাধ্যতামূলক হওয়া উচিৎ। আমি মনে করি যদি বিএনপি নির্বাচন না করে তাহলে তারা নিজেরাই ক্ষতিগ্রস্থ হবে। নির্বাচনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গণতন্ত্রকে ধীরে ধীরে এগিয়ে নিতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশকে আমরা উন্নত বাংলাদেশ গড়ছি, সেখানে বিএনপির অবদান রাখার সুযোগ ছিলো। বিএনপি যদি সত্যিকারের দেশপ্রেমিক ও বাংলাদেশের উন্নতি চায়, তাহলে কেন তারা নির্বাচন থেকে দূরে থাকবেন"।

মন্ত্রী বলেন, "আপনারা বঙ্গবন্ধুর আমল থেকে লক্ষ্য করেছেন সকল নির্বাচন সামরিক শাসকসহ যারাই থাকুন না কেন সমস্ত প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধু দেশের মানুষকে সাথে নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন। মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগনকে সাথে নিয়ে প্রতিটি নির্বাচনে সামরিক শাসকের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে অংশগ্রহণ করেছেন। জনগনের অধিকার আদায়ের দায়িত্ব পালন করেছেন"।

এর আগে মন্ত্রী টুঙ্গিপাড়া পৌঁছে জাতিরপিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। পরে তিনি পবিত্র ফাতেহাপাঠ ও বঙ্গবন্ধুর রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মোনাজাত করেন। 

এ সময় পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সচিব মোঃ কামাল উদ্দিন তালুকদার, এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী মোঃ আবুল কালাম আজাদ, মিল্কভিটার চেয়ারম্যান শেখ নাদির হোসেন লিপু, এলজিইডির প্রকল্প পরিচালক ভরত চন্দ্র মন্ডল, কাজী মিজানুর রহমান, শাহ আলমগীর, জহিরউদ্দিন শেখ, মোঃ আমিনুল ইসলাম, প্রকল্প ব্যবস্থাপক মোঃ শামসুল ইসলাম,  গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খানসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।