• সোমবার, অক্টোবর ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩৩ রাত

হত্যা মামলায় বিএনপি নেতার মেয়ে কারাগারে

  • প্রকাশিত ১০:৩৩ রাত মার্চ ৩, ২০১৯
বিএনপি নেত্রী চৌধুরী নায়াব ইউসুফ
কারাগারে নেওয়া হচ্ছে বিএনপি নেত্রী চৌধুরী নায়াব ইউসুফকে। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন।

রবিবার ফরিদপুরের জেলা ও দায়রা জজ মোঃ হেলাল উদ্দিনের আদালতে জামিন নিতে হাজির হলে তাকে জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এবং সাবেক মন্ত্রী ও ফরিদপুর - ৩ (সদর) আসনের সাবেক এমপি চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের জেষ্ঠ্য কন্যা এবং বিএনপি নেত্রী চৌধুরী নায়াব ইউসুফকে একটি হত্যা মামলায় জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

রবিবার ফরিদপুরের জেলা ও দায়রা জজ মোঃ হেলাল উদ্দিনের আদালতে জামিন নিতে হাজির হলে তাকে জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

মামলার নথি সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ১১ ডিসেম্বর ফরিদপুরের নর্থচ্যানেল ইউনিয়নের গোলডাঙ্গিতে দু’পক্ষের কথা কাটাকাটির জের ধরে আওয়ামী লীগ নেতা ইউসুফ বেপারী (৪০) নামে এক ব্যক্তির বিএনপি সমর্থকদের হামলায় নিহত হয়। এ ঘটনায় নিহতের ভাই সোহরাব বেপারী বাদি হয়ে ৩৮ জনকে আসামী করে কোতয়ালী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় ৩৭ নম্বর আসামী চৌধুরী নায়াব ইউসুফ গত ৪ ফেব্রুয়ারী হাইকোর্ট থেকে ৪ সপ্তাহের অন্তবর্তীকালীন জামিন লাভ করেন।

রবিবার দুপুরে স্থায়ী জামিন লাভের জন্য জেলা জজ আদালতে তিনি হাজির হন। দুপুর আড়াইটার দিকে জেলা ও দায়রা জজ মোঃ হেলাল উদ্দিনের আদালতে জামিন আবেদনের উপর শুনানী শেষে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন।

জেলা জজ আদালতের সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট শহিদুল্লাহ জাহাঙ্গীর জানান, "আমরা ২০ জন আইনজীবী চৌধুরী নায়াব ইউসুফের পক্ষে জামিন শুনানীতে অংশ নেই। এসময় বিজ্ঞ বিচারকের কাছে জামিন প্রার্থনা করে জানাই, মামলার এজাহারে চৌধুরী নায়াব ইউসুফের নাম যুক্ত করা হলেও তিনি ঘটনার সময় সেখানে ছিলেন না। এছাড়া নিহতের ইনজুরি রিপোর্টেও আঘাতের কোন চিহ্ন নেই। তাই এটি আদৌ হত্যা মামলা কিনা সেটিই বিচার্য বিষয়"।

জবাবে সরকার পক্ষের আইনজীবীগণ জামিনের বিরোধিতা করে বলেন, "এজাহার অনুযায়ী তিনি সরাসরি এই মামলায় সম্পৃক্ত না হলেও তার হুকুমেই এই ঘটনা ঘটে। উচিত ছিলো তাকে প্রধান আসামী করা"। সরকার পক্ষে এপিপি অ্যাডভোকেট জাহিদ বেপারী, অ্যাডভোকেট অনিমেষ রায়, লক্ষন সাহা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিকেল পৌনে ৫টার দিকে চৌধুরী নায়াব ইউসুফকে জেলা কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, ফরিদপুর জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রশিদুল ইসলাম, শহর বিএনপির সভাপতি রেজাউল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা মিরাজ, ফরিদপুর মহানগর যুবদলের সভাপতি বেনজির আহমেদ তাবরীজ, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হাসান কায়েসসহ বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।