• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:২৮ সকাল

ডাকসু নির্বাচন: ভোটের যত খুঁটিনাটি

  • প্রকাশিত ০৭:২৯ রাত মার্চ ৯, ২০১৯
ডাকসু ভবন
ডাকসু ভবন (ফাইল ছবি)। মেহেদি হাসান/ঢাকা ট্রিবিউন

এ নির্বাচনের খুঁটিনাটি দিকগুলো জেনে নেওয়া যাক-

২৮ বছর পর আগামী ১১ মার্চ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) এবং ১৮টি হল সংসদের নির্বাচন। এ নির্বাচনের জন্য ভোটার নির্দেশনা ঘোষণা করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। 

এ নির্বাচনের খুঁটিনাটি দিকগুলো জেনে নেওয়া যাক-

মোট কতজন প্রার্থী লড়ছেন?

ডাকসু ও হল সংসদে এবার প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন মোট ৭৩৮ জন প্রার্থী।চূড়ান্ত তালিকায় এবার মোট ভোটার সংখ্যা ৪৩ হাজার ২৫৫ জন।

একজন ভোটারকে মোট কতটি ভোট দিতে হবে?

কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ ও হল সংসদের জন্য মোট ৩৮ জনকে বাছাই করতে হবে প্রত্যেক ভোটারকে। তবে ৪৩ হাজারের বেশি ভোটারের জন্য মোট কতটি ভোটিং বুথ রাখা হচ্ছে, তা জানাতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

ভোটগ্রহণের সময় কখন?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে ভোটগ্রহণের সময় সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত। তবে প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক এসএম মাহফুজুর রহমান জানান, হলের ভেতরে যতক্ষণ ভোটার থাকবে ততক্ষণ ভোট দেওয়ার সুযোগ থাকবে। ভোটের দিন ২টার মধ্যে যারা হলে প্রবেশ করবে, তারা অবশ্যই ভোট দিতে পারবে বলে গণমাধ্যমকে জানান তিনি।

কী পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ করা হবে?

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রার্থীর সংখ্যা বিবেচনায় ডাকসু ও হল সংসদের নির্বাচনে অপটিক্যাল মার্ক রিকগনিশন (ওএমআর) ফর্মে ভোটগ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। প্রতিটি পদের জন্য আলাদাভাবে ব্যালট নম্বর ও প্রার্থীর নাম ওএমআর ফর্মে থাকবে। বৃত্ত ভরাট করে প্রার্থী বাছাই করতে হবে ভোটারদের।

আপনি ভোটার হলে আরও যা জানা দরকার

গত বুধবার (৬ মার্চ) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে হল প্রাধ্যক্ষদের এক সভায় কিছু নির্দেশনা চূড়ান্ত করা হয়।

সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে আর্চওয়ে আই মেটাল ডিটেক্টর স্থাপন করা হবে। শিক্ষার্থীদের আইডি কার্ড দেখিয়ে নিজ নিজ ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ করতে হবে। দুপুর ২টার মধ্যে যারা কেন্দ্রে প্রবেশ করবে তাদের সবারই ভোট গ্রহণ করা হবে। ভোটারকে নিজের আইডি কার্ড দেখিয়ে ব্যালট পেপার সংগ্রহ করে প্রার্থীর নামের ডানপাশে নির্ধারিত ঘরে ক্রসচিহ্ন দিয়ে ভোট দিতে হবে। দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ বুথ ও প্রয়োজনীয় সহযোগিতার ব্যবস্থা রাখারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন।

নির্বাচনের দিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ক্লাস ও পরীক্ষা বন্ধ থাকবে।

ভোটের দিন বিশ্ববিদ্যালয়ে বহিরাগতদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রের বরাত দিয়ে বাসস জানায়, নির্বাচনের দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩টি প্রবেশ পথ (নীলক্ষেত, শাহবাগ ও হাইকোর্ট) বিশেষ নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় থাকবে। এই ৩টি প্রবেশ পথ দিয়ে শুধুমাত্র ভোটার ও নির্বাচন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ নিজ নিজ পরিচয়পত্র দেখিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে যাওয়া-আসা করতে পারবেন। ভোট কার্যক্রমে সংশ্লিষ্ট পাসযুক্ত যানবাহন বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্ধারিত এই ৩টি গেট দিয়ে চলাচল করবে। শিক্ষার্থীদের অবাধ চলাচল ও শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্ধারিত ও স্টিকারযুক্ত যানবাহন ছাড়া অন্য কোনও যানবাহন ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে পারবে না।

ডাকসু নির্বাচনের দিন রাত ১০টা পর্যন্ত সর্বসাধারণকে বিকল্প রাস্তা ব্যবহারের জন্য অনুরোধ জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নির্দেশনা

শুক্রবার (৮ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতর থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, নির্বাচনের দিন গণমাধ্যম কর্মীরা চিফ রিটার্নিং অফিসারের ইস্যু করা পরিচয়পত্র দেখিয়ে এবং সংশ্লিষ্ট হলের রিটার্নিং অফিসারের অনুমতি সাপেক্ষে ভোট কেন্দ্রের গেস্টরুম/নির্ধারিত স্থান পর্যন্ত যেতে পারবেন। তবে ভোটকেন্দ্র থেকে সরাসরি সম্প্রচার করা যাবেনা। ভোটকেন্দ্রে মোবাইল ফোনসহ সব ধরনের ইলেট্রনিক ডিভাইসের ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সদস্য এবং প্রিন্ট ও পাস পাওয়া সাপেক্ষে ইলেকট্রনিক মিডিয়ার নির্ধারিত সংখ্যক প্রতিনিধি ভোটকেন্দ্রের নির্ধারিত জায়গায় উপস্থিত থাকতে পারবেন। আবেদন সাপেক্ষে একটি টেলিভিশন চ্যানেলের জন্য সর্বোচ্চ ৪টি ক্যামেরা ইউনিটকে এবং প্রতিটি প্রিন্ট মিডিয়ার সর্বাধিক ২জন সাংবাদিককে পরিচয়পত্র দেয়া হবে।