• রবিবার, অক্টোবর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০০ রাত

ক্রাইস্টচার্চে নিহতদের একজন কুড়িগ্রামের ড. সামাদ

  • প্রকাশিত ০৫:৫৮ সন্ধ্যা মার্চ ১৫, ২০১৯
ড. সামাদ
ক্রাইস্টচার্চ হামলায় নিহত ড. সামাদ। ছবি: সংগৃহীত

গত ৮-১০ বছর ধরে স্ত্রী ও দুই ছেলেসহ নিউজিল্যান্ডের নাগরিকত্ব নিয়ে সেখানেই বসবাস করে আসছিলেন

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার ঘটনায় নিহত হয়েছেন তিন বাংলাদেশি। তাদের মধ্যে ড. মো. আবদুস সামাদের বাড়ি কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলায়। তিনি নাগেশ্বরী পৌর এলাকার পূর্ব নাগেশ্বরীর মধুরহাইল্লা গ্রামের মৃত জামাল উদ্দিন সরকারের ছেলে। 

নিহত ড. সামাদের ছোট ভাই ও নাগেশ্বরী ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক এ কে এম শামসুদ্দিন ঢাকা ট্রিবিউনকে এ তথ্য জানিয়েছেন। 

শামসুদ্দিন জানান, ঘটনার পরপরই আমরা নিউজিল্যান্ড থেকে মেসেজ পেয়েছি যে, আমাদের ভাই ড. মো. আবদুস সামাদ বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত হয়েছেন। তবে আমার ভাবী ও তাদের দুই ছেলে জীবিত রয়েছেন। তারা ভাল আছেন।

নিহত ড. সামাদের ভাই  আরও বলেন, ‘‘আমার ভাই ড. সামাদ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন। গত ৮-১০ বছর ধরে স্ত্রী ও দুই ছেলেসহ নিউজিল্যান্ডের নাগরিকত্ব নিয়ে সেখানেই বসবাস করে আসছিলেন। মাঝে মাঝে তিনি দেশে আসতেন।’’

আরেক সহোদর আব্দুল কাদেরের বরাত দিয়ে শামসুদ্দিন বলেন, ‘‘ছোট ভাই কাদেরের সঙ্গে আমার ভাবীর (ড. সামাদের স্ত্রী) কথা হয়েছে। তিনি ও তাদের দুই ছেলে ভাল আছেন। আমরা সবসময় খোঁজ রাখার চেষ্টা করছি।’’

এদিকে, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষিতত্ত্ব বিভাগের প্রফেসর ড. সুলতান উদ্দিন ভুঞার বরাত দিয়ে বাংলা ট্রিবিউনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ড. আবদুস সামাদ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের কৃষিতত্ত্ব বিভাগের প্রফেসর ছিলেন। তিনি গতবছর চাকরি থেকে ইস্তফা দেন।