• বুধবার, নভেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:৪৩ বিকেল

এফ আর টাওয়ার অগ্নিকাণ্ডে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০

  • প্রকাশিত ০৬:০১ সন্ধ্যা মার্চ ২৮, ২০১৯
বনানী আগুন
বনানীর এফ আর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডে হতাহতদের রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে নিতে প্রস্তুত অ্যাম্বুলেন্স। ছবি: মেহেদি হাসান/ঢাকা ট্রিবিউন

হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

রাজধানীর বনানীর বহুতল এফ আর টাওয়ারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ২০ জন নিহত এবং ৭০ জন আহত হওয়ার কথা জানিয়েছে পুলিশ। এর মধ্যে একজন শ্রীলঙ্কান নাগরিক রয়েছেন।

এর আগে বিভিন্ন হাসপাতাল সূত্রে এই অগ্নিকাণ্ডে পাঁচজন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছিল। হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বৃহস্পতিবার বিকেল পাঁচটার দিকে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরমান আলী। নিহতদের মধ্যে পরিচয় জানা গেছে- পারভেজ সাজ্জাদ (৪৭), আমেনা ইয়াসমিন (৪০), মামুন (৩৬), আবদুল্লাহ আল ফারুক (৩২), মাকসুদুর (৬৬), মনির (৫০) ও শ্রীলঙ্কার নাগরিক নিরস চন্দ্রের।

এছাড়া, সন্ধ্যার পর মোট ১৩ জনের মরদেহ ভবনের ভেতর থেকে বের করে আনা হয়। তাদের পরিচয় জানা যায়নি।

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দায়িত্বরত বনানী থানার কন্ট্রোল রুম থেকে জানানো হয়েছে, নিহতদের মধ্যে আমেনার মৃত্যু হয় অ্যাপোলো হাসপাতালে। পারভেজ সাজ্জাদ মারা যান বনানী ক্লিনিকে, নিরস চন্দ্র কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে এবং মামুন, মাকসুদুর ও মনির ইউনাইটেড হাসপাতালে মারা গেছেন। এ ছাড়া ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা যান আবদুল্লাহ আল ফারুক।

এদিকে, ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক দীলিপ কুমার ঘোষ সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, এই অগ্নিকাণ্ডে এখন পর্যন্ত  ১৯ জন নিহত ও ৭০ জন আহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ৫২ মিনিটের দিকে এফ আর টাওয়ারে আগুন লাগে। ২১ তলা ভবনটির ৯ তলায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিসের ২২টি ইউনিটের চেষ্টায় বিকেল পৌনে পাঁঁচটার দিকে আগুন কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আনে। ভবনটিতে অনেক মানুষ আটকা পড়েছেন। তাদের উদ্ধার কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস, বিমান ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা।