• সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২৪ রাত

এফ আর টাওয়ার অগ্নিকাণ্ডে প্রাণ হারালেন যারা

  • প্রকাশিত ০৩:৫৬ বিকেল মার্চ ২৯, ২০১৯
পুলিশ হত্যা মৃত্যু
প্রতীকী ছবি

একজনের লাশ ছাড়া বাকি সবার লাশ স্বজন বা পরিচিতদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

রাজধানীর বনানীতে এফ আর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ২৫ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে পুলিশ। তাদের সবার নাম-পরিচয় পাওয়া গেছে। একজনের লাশ ছাড়া বাকি সবার লাশ স্বজন বা পরিচিতদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এফ আর টাওয়ারে নিহতদের নাম পরিচয়-

১. সৈয়দা আমিনা ইয়াসমিন (৪৮), বাবা সৈয়দ মহিউদ্দিন আহমেদ, গ্রাম-রামপাশা, পো- কেরামতনগর, থানা- কোমলগঞ্জ, জেলা-মৌলভীবাজার। বর্তমান ঠিকানা-  ২০৬/ কাফরুল, ঢাকা। লাশ রাখা ছিল অ্যাপোলো হাসপাতালে। 

২. মো. মনির হোসেন সর্দার (৫২), বাবা- মৃত মোতাহার হোসেন সর্দার, গ্রাম- উত্তর কড়াপুর (সর্দারবাড়ি), থানা-বিমানবন্দর, জেলা-বরিশাল। বর্তমান ঠিকানা-৬৮৫/২ মোল্লার রোড, পূর্ব মনিপুর, মিরপুর, ঢাকা। লাশ রাখা ছিল ইউনাইটেড হাসপাতালে।

৩. মো. মাকসুদুর রহমান (৩২), বাবা-মৃত মিজানুর রহমান। বর্তমান ঠিকানা-১১ নং আলমগঞ্জ, থানা-গেন্ডারিয়া, জেলা-ঢাকা। লাশ রাখা ছিল ইউনাইটেড হাসপাতালে।

৪. মো. আবদুল্লাদ আল মামুন (৪০), বাবা-মৃত আলহাজ আবুল কাশেম, গ্রাম- বালুয়াডাঙ্গা, কোতোয়ালি, দিনাজপুর। বর্তমান ঠিকানা- বাবা-১৫/৬/২, রোড-১, কল্যাণপুর, মিরপুর, ঢাকা। লাশ রাখা ছিল ইউনাইটেড হাসপাতালে।

৫. মো. মোস্তাফিজুর রহমান (৩৬), বাবা- মৃত আব্দু রশিদ মুন্সি, গ্রাম-চতরা, থানা-পীরগঞ্জ, জেলা- রংপুর। বর্তমান ঠিকানা-বাসা-২/এ/২/১৬, মিরপুর-২, থানা মিরপুর, ঢাকা। সিএমএইচ হাসপাতালে লাশ রাখা ছিল।

৬. মো. মিজানুর রহমান, গ্রাম-কোদলা, থানা-তেরখাদা, জেলা-খুলনা। বর্তমান ঠিকানা- হেরিটেজ এয়ার এক্সপ্রেস, এফ আর টাওয়ার (১০ তলা), রোড-১৭, বনানী, ঢাকা। লাশ রাখা ছিল সিএমএইচ হাসপাতালে।  

৭. ফ্লোরিডা খানম পলি (৪৫), স্বামী- ইউসুফ ওসমান, বাবা- আফজাল হোসেন, বাসা নং-২, রোড নং-৪, রূপনগর হাউজিং, থানা-রূপনগর, ঢাকা। সিএমএইচ হাসপাতালে লাশ রাখা ছিল।

আরও পড়ুন- মৃত্যুর আগে ফোনে পরিবারের কাছে ক্ষমা চেয়েছিলেন মামুন

৮. আতাউর রহমান (৬২), বাবা- মৃত হাবিবুর রহমান, বাসা-১৭/২, তাজমহল রোড, ব্লক-সি, মোহাম্মদপুর, ঢাকা। লাশ রাখা ছিল সিএমএইচ হাসপাতালে।

৯.  মো. রেজাউল করিম (৪০), পিতা-নাজমুল হাসান, মাতা-তহুরা বেগম, গ্রাম-দক্ষিণ নাগদা, থানা- তমলব (দক্ষিণ) জেলা-চাঁদপুর। বর্তমান ঠিকানাঃ বাড়ি নং-১৬, রোড -২৩, ফ্ল্যাট বি/টু, বনানী। কুর্মিটোলা হাসপাতালে লাশ ছিল।

১০. আহাম্মেদ জাফর (৫৯)। বাবা- হাজি হেলাল উদ্দিন (মৃত), মা-আলভি বেগম। নবীনগর, সোনারগাঁ, নারায়ণগঞ্জ। লাশ রাখা ছিল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

১১. জেবুন্নেছা (৩০)। বাবা- আবদুল ওয়াহাব, মা-কামরুন্নাহার, লক্ষ্মীনারায়ণপুর, বেগমগঞ্জ, নোয়াখালী। বর্তবান ঠিকানাঃ ৬৬/৩, পশ্চিম রাজাবাজার, শেরেবাংলা নগর, ঢাকা। লাশ রাখা  ছিল কুর্মিটোলা হাসপাতাল।

১২. মো. সালাউদ্দিন মিঠু (২৫)- পিতা: মো. সামসুদ্দিন, মাতা: মাকছুদা বেগম, বাসা নং: ৩৪৯, মধুবাগ মগবাজার, রমনা, ঢাকা। বিনা ময়নাতদন্তে নিহতের বাবাকে কুর্মিটোলা থেকে লাশ হস্তান্তর।

১৩. নাহিদুল ইসলাম তুষার (৩৫)- পিতা: মো. ইছাহাক আলী, মাতা: নুরুন্নাহার, সাং- ভানুয়াবহ, মির্জাপুর, টাঙ্গাইল। মো. আবুল হোসেন নিহতের চাচা। তার কাছে বিনা ময়নাতদন্তে কুর্মিটোলা থেকে লাশ হস্তান্তর।

১৪. তানজিলা মৌলি (২৫)- স্বামী: রায়হানুল ইসলাম, পিতা: মো. মাসুদার রহমান। সাং: সান্তাহার বলিপুর, আদমদিঘী, বগুড়া। বর্তমান ঠিকানা: মিতালী হাউজিং, দক্ষিণ কাফরুল, বাড়ি-ই/৩, কাফরুল, ঢাকা। কুর্মিটোলা থেকে লাশ হস্তান্তর।

১৫. মো. পারভেজ সাজ্জাদ (৪৬)- পিতা: মৃত নজরুল ইসলাম মৃধা, মাতা: নাছিমা বেগম, সাং-বালুগ্রাম, কাশিয়ানী, গোপালগঞ্জ। কুর্মিটোলা থেকে লাশ হস্তান্তর।

আরও পড়ুন- ‘বেরোতে পারব কি না জানিনা, সবাইকে দোয়া করতে বলো’

১৬. হীরস (৩৫)- বিগনাবাজার, শ্রীলঙ্কা। বর্তমান ঠিকানা- বাসা নং-৭৬, রোড- ১৮, ব্লক-এ, বনানী, ঢাকা। ঢাকা মেডিক্যাল থেকে লাশ হস্তান্তর।   

১৭. মো. ইফতিয়ার হোসেন মিঠু (৩৭), বাবা-ইসহাক আলী, বানিয়াপাড়া, কুমারখালী, কুষ্টিয়া। বর্তমান ঠিকানাঃ সিনিয়র হিসাব রক্ষক ফ্লোগাল, এফ আর টাওয়ার বনানী, ঢাকা। লাশ রাখা ছিল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

১৮. শেখ জারিন তাসনিম বৃষ্টি (২৫), বাবা- শেখ মোজাহিদুল ইসলাম, মা-নীনা ইসলাম, ৭৪, বেজপাড়া, মেনরোড, যশোর। বর্তমান ঠিকানাঃ খিলক্ষেত বটতলা, খিলক্ষেত, ঢাকা। লাশ রাখা ছিল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

১৯. মো. ফজলে রাব্বি (৩০), বাবা- মো. জহিরুল হক, মা-শাহানাজ বেগম, উত্তর ভূঁইগড়, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ। লাশ রাখা ছিল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

২০. আতিকুর রহমান (৪২), বাবা-আবদুল কাদির মির্জা (মৃত), মা-হাজেরা বেগম, পূর্ব সারেন গাঁ, শৈলপাড়া, পালং, শরীয়তপুর। বর্তমান ঠিকানাঃ আমতলী, মানিকদী ক্যান্টনমেন্ট, ঢাকা। লাশ রাখা ছিল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

২১. আনজির সিদ্দিক আবির (২৭), বাবা- আবু বক্কর সিদ্দিক, কলেজ রোর্ড, পাটগ্রাম, লালমনিরহাট। বর্তমান ঠিকানাঃ পাইকপাড়া, মিরপুর, ঢাকা। লাশ রাখা ছিল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

২২. আব্দুল্লাহ আল ফরুক (৬২), বাবা-মকবুল আহমেদ, পূর্ব বগাইব, ডেমরা, ঢাকা। লাশ রাখা ছিল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

২৩. রুমকি আক্তার (৩০), স্বামী-মাকসুদুর রহমান, বিল্লালাড়, জলঢাকা, নীলফামারী। লাশ রাখা ছিল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

২৪. মো. মঞ্জুর হাসান (৪৯), বাবা-মনসুর রহমান (মৃত), মা-মিসেস রোকেয়া বেগম, বোয়ালিয়া, নওগাঁ। বর্তমান ঠিকানাঃ ২৬২/২, ছাপড়া মসজিদ, ইব্রাহিম পুর, কাফরুল ঢাকা, লাশ রাখা ছিল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। 

২৫. মো. আমির হোসেন রাব্বি (২৯)- পিতা: আউয়ুব আলী, মাতা: রত্না খাতুন, সাং- গাঙ্গাহাটি, (চরপাড়া), আতাইকুলা, পাবনা। বর্তমান ঠিকানা: বাসা নং- ২৩, রোড-৯, ব্লক-এ, নিকুঞ্জ-২, খিলক্ষেত, ঢাকা। ঢাকা মেডিক্যার কলেজ হাসপাতাল।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ৫৫ মিনিটে বনানীর ২১ তলা বিশিষ্ট এফ আর টাওয়ারের ৯ম তলায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিসের ২৫টি ইউনিট আগুন নেভানো ও হতাহতদের উদ্ধারের কাজ করে। পাশাপাশি সেনাবাহিনী, বিমানবাহিনী, নৌবাহিনী, পুলিশ, র‍্যাব, রেড ক্রিসেন্টসহ ফায়ার সার্ভিসের প্রশিক্ষিত অনেক স্বেচ্ছাসেবী কাজ করে। প্রায় সাড়ে ছয় ঘণ্টা চেষ্টার পর রাত ৭টায় আগুন নেভানো সম্ভব হয়। এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত ২৫ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ভবনটিতে আর কেউ নেই বলে নিশ্চিত করে অভিযানের সমাপ্তি ঘোষণা করেছে ফায়ার সার্ভিস।