• রবিবার, মে ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৩:১০ বিকেল

এফআর টাওয়ারের ২ মালিক রিমান্ডে

  • প্রকাশিত ০৪:৪২ বিকেল মার্চ ৩১, ২০১৯
বনানীর এফ আর টাওয়ারের জমির মালিক এস এম এইচ আই ফারুক ও ভবনের বর্ধিত অংশের মালিক তাসভিরুল ইসলামকে রিমান্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে। ছবি : ঢাকা ট্রিবিউন
বনানীর এফ আর টাওয়ারের জমির মালিক এস এম এইচ আই ফারুক ও ভবনের বর্ধিত অংশের মালিক তাসভিরুল ইসলামকে রিমান্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে। ছবি : ঢাকা ট্রিবিউন

গত বৃহস্পতিবার বনানীর এফআর বাণিজ্যিক ভবনে অগ্নিকাণ্ডে ২৬ জন নিহত হন।

বনানীর এফ আর টাওয়ারে আগুনের ঘটনায় জমির মালিক এস এম এইচ আই ফারুক ও ভবনের বর্ধিত অংশের মালিক বিএনপি নেতা তাসভিরুল ইসলামকে সাতদিনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত। 

আজ রোববার দুপুরে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালত সাদবীর ইয়াছির আহসান চৌধুরী শুনানি শেষে এ আদেশ দেন। 

এর আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) পরিদর্শক জামাল উদ্দিন আসামিদের আদালতে হাজির করেন। মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তিনি ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন।

গতকাল শনিবার রাতে এফ আর টাওয়ারের জমির মালিক এস এম এইচ আই ফারুককে (৬৫) বারিধারার বাসা থেকে এবং ভবনের বর্ধিত অংশের মালিক বিএনপি নেতা তাসভিরুল ইসলামকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা গ্রেপ্তার করে ডিবি।

পরে এ ঘটনায় শনিবার রাতে বনানী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মিল্টন দত্ত বাদী হয়ে মামলা করেন। মামলায় এস এম এইচ আই ফারুক, রূপায়ন গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান ও তাসভিরুল ইসলামকে আসামি করা হয়।

কামাল আতাতুর্ক এভিনিউয়ের ৩২ নম্বর হোল্ডিংয়ে এফআর টাওয়ারের জমির মূল মালিক ছিলেন এস এম এইচ আই ফারুক। ২০০৫ সালে জমিতে ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করে রূপায়ন গ্রুপ। এর দুই বছর পর যৌথ মালিকানায় ভবনটি চালু হলে  তার নাম এফআর টাওয়ার রাখা হয়। মূলত ফারুক ও রূপায়ন এই দুই নামের সংক্ষিপ্ত রূপ। পরে রূপায়ন গ্রুপ তাদের মালিকানায় থাকা অংশ বিক্রি করে দেয়। 

গত বৃহস্পতিবার বনানীর এফআর বাণিজ্যিক ভবনে অগ্নিকাণ্ডে ২৬ জন নিহত হন। আহত অবস্থায় অর্ধ শতাধিক জনকে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।  এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করে।