• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:১৪ দুপুর

জয়নাল হাজারীর স্টিয়ারিং বাহিনীর নেতা গ্রেফতার

  • প্রকাশিত ০৮:২৭ রাত এপ্রিল ১, ২০১৯
আরজু
জয়নাল হাজারীর বিলুপ্ত স্টিয়ারিং বাহিনীর নেতা আজাহারুল হক আরজু। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

চলমান উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ফেনী সদর থেকে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে হেরে যান তিনি।

ফেনীর বহুল আলোচিত-সমালোচিত আওয়ামী লীগ নেতা জয়নাল হাজারীর বিলুপ্ত 'স্টিয়ারিং বাহিনী'র নেতা আজাহারুল হক আরজুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারের পর আদালতে তোলা হলে সোমবার বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চলমান উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ফেনী সদর থেকে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে হেরে যান আরজু। 

পুলিশ জানায়, ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি হিসেবে গ্রেফতার দেখিয়ে সোমবার বিকেল সাড়ে তিনটায় তাকে ফেনী সদর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তানিয়া ইসলামের আদালতে তোলা হলে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন । 

এ তথ্য নিশ্চিত করে ফেনী মডেল থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, ৫টি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি আজহারুল হক আরজু নিজ বাড়িতে অবস্থান করছে, এমন তথ্যের ভিত্তিতে রবিবার রাতে শহরতলীর  আমতলী এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। 

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, আজাহারুল হক আরজু আওয়ামী লীগ নেতা জয়নাল হাজারীর বিতর্কিত স্টিয়ারিং বাহিনীর ক্যাপ্টেন ওয়ান পদে আসীন ছিল। ১৯৯৩ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত সে এই পদে সক্রিয় ছিল। সে সময় ফেনীর মানুষের কাছে মূর্তিমান আতঙ্ক হিসেবে পরিচিত ছিল সে। ওই বাহিনীর বিরুদ্ধে খুন-রাহাজানিসহ বহুসংখ্যক বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের অভিযোগ রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ওই সময় হাজারীর আশীর্বাদে ফেনী সদরের ধর্মপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিল আরজু। তার বিরুদ্ধে যুবদল নেতা নাসির, ছাত্রদল নেতা তুষার, ঠিকাদার জলিল হত্যাসহ প্রায় দু’ডজন মামলা ছিল। ২০০১ সালে যৌথবাহিনীর অভিযানকালে জয়নাল হাজারীর সঙ্গে দেশ ছেড়ে পালায় আরজু। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এলে গডফাদারের সঙ্গে দেশে ফেরে সে। এরপর একে একে সব মামলা থেকে রাজনৈতিক বিবেচনায় ছাড়া পায় আরজু। 

দলের একাধিক সূত্র জানায়, আরজু তার নেতা জয়নাল হাজারীর পৃষ্ঠপোষকতায় সরকারের এই মেয়াদে গত দশ বছর ফেনীর আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা চালায়। কিন্তু জেলা পর্যায়ে দলের শীর্ষ নেতৃত্বের বিরোধিতার মুখে তার সেই প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়।

এদিকে, রবিবার অনুষ্ঠিত ফেনী উপজেলা নির্বাচনে পাঁচটি মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি হিসেবে হুলিয়া নিয়ে সদরের আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুর রহমান বিকমের বিরুদ্ধে নির্বাচনে লড়ে হেরে যান।