• শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০২:১৭ দুপুর

নারায়ণগঞ্জে ট্রলার ডুবিতে নিখোঁজ পুলিশ সদস্যের লাশ উদ্ধার

  • প্রকাশিত ০৬:২৯ সন্ধ্যা এপ্রিল ৩, ২০১৯
নারায়ণগঞ্জ

বুধবার সকালে পুলিশ সদস্য সেলিম মিয়ার মরদেহ উদ্ধার করে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। সেই সঙ্গে উদ্ধার কাজও সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলায় ট্রলার ডুবির ঘটনায় নিখোঁজ হওয়ার তিনদিন পর পুলিশের টি.এস.আই মো. সেলিম মিয়ার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। 

বুধবার সকালে বন্দর উপজেলার দিঘীরপাড় এলাকার শীতলক্ষ্যা নদীর মোহনা থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সেলিম গোপালগঞ্জ জেলার গোপীনাথপুর গ্রামের ইয়ার আলী ছেলে। 

বিষয়টি নিশ্চিত করে নারায়ণগঞ্জ সোনারগাঁও থানার ওসি মো. মনিরুজ্জামান ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, বুধবার সকালে বন্দর থানা  টি.এস.আই মো. সেলিম মিয়ার লাশ উদ্ধার করে সোনারগাঁ থানায় হস্তান্তর করলে এখানেই তার প্রথম জানাজা শেষে স্বজনদের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়। গোপালগঞ্জের গোপীনাথপুরের বাড়িতে দ্বিতীয় জানাজা শেষে দাফন করা হবে।

নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক মো. মামুনুর রশিদ জানান, বুধবার সকালে পুলিশ সদস্য সেলিম মিয়ার মরদেহ উদ্ধার করে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। সেই সঙ্গে উদ্ধার কাজও সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে।

এর আগে ১ এপ্রিল নিখোঁজ নারী আনসার সদস্য রীতা আক্তার ও ২ এপ্রিল নিবার্চনে প্রিজাইডিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করা ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের (ইউসিবি) সোনারগাঁও শাখা ব্যবস্থাপক বোরহান উদ্দিনের লাশ উদ্ধার করা হয়।

গত রোববার ৩১ মার্চ সন্ধ্যায় সোনারগাঁও উপজেলার চর কিশোরগঞ্জের বালুরঘাট এলাকার চরহোগলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের নির্বাচনী দায়িত্ব পালন শেষে প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং এজেন্ট ও আনসার সদস্যসহ ১৯ জনের একটি দল ট্রলারে চড়ে বৈদ্যেরবাজার ঘাটের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। সন্ধ্যা সাতটার দিকে প্রবল ঝড়ের কবলে পড়ে ট্রলারটি মেঘনা নদীর চরহোগলা এলাকায় উল্টে যায়। এ সময় ১৬ জন সাঁতরে তীরে উঠতে সক্ষম হলেও প্রিজাইডিং অফিসার, একজন পুলিশ সদস্য ও একজন আনসার সদস্য নিখোঁজ হয়।