• মঙ্গলবার, মে ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৫:২০ সন্ধ্যা

ফেসবুক পেজে রাবি শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ

  • প্রকাশিত ০৭:৪৮ রাত এপ্রিল ৫, ২০১৯
রাবি পেজ
এই পেজ থেকেই রাবি শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানিমূলক পোস্ট করে পরে তা সরিয়ে ফেলা হয়। স্ক্রিনশট

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। ইতোমধ্যে পেজের এডমিনদের ধরতে পুলিশ কাজ করছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক পেজে ছবিসহ পোস্ট দিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় শুক্রবার সকালে ওই পেজের এডমিনদের বিরুদ্ধে মতিহার থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী।

অভিযুক্ত ‘Ru Crush & Hate Confession’ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক একটি ফেসবুক পেজ। বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের পাঠানো বিভিন্ন ছবি ও পোস্ট শেয়ার করা হয় ওই পেজে। পেজটিতে সাড়ে পাঁচ হাজারের কিছু বেশি লাইক রয়েছে। তবে শুক্রবার বিকেল থেকে ওই পেজটিকে সার্চ করে পাওয়া যাচ্ছে না।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বুধবার মধ্যরাতে ‘Ru Crush & Hate Confession’ পেজ থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক নারী শিক্ষার্থীর ছবিসহ একটি পোস্ট আপডেট করা হয়। সেখানে তার সম্পর্কে কুরুচিপূর্ণ ও অশ্লীল মন্তব্য জুড়ে দেয়া হয়। মুহূর্তেই পোস্টটি ভাইরাল হয়ে যায়। পোস্টে শুরু হয় ‘বিদ্বেষমূলক’ মন্তব্য। কেউ কেউ ওই পোস্টের স্ক্রিনশট নিয়ে আরও ‘বিদ্বেষমূলক’ মন্তব্য জুড়ে দিয়ে শেয়ার করতে থাকেন নিজ নিজ ওয়ালে। পরে অনেকের আপত্তির মুখে বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই পেজ থেকে পোস্টটি সরিয়ে ফেলা হয়।

ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, রাতে পোস্টটি দেখার পরপরই আমি পেজের মেসেজ অপশনে গিয়ে পোস্টটি সরানোর জন্য তাদেরকে অনুরোধ করি। কিন্তু আমার আপত্তি গায়ে না মেখে তারা বিষয়টি নিয়ে হাস্যরসাত্মক প্রত্যুত্তর দিতে থাকে। পরে আমি আইনের আশ্রয় নেওয়ার কথা বললে, তারা উত্তর দেয়- ‘যা করতে চান করেন। আপনার সঙ্গে এতো কথা বলার সময় আমাদের নেই।’ পরে আমি শুক্রবার সকালে মতিহার থানায় সাধারণ ডায়েরি করি।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, শুক্রবার সকালে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী আমার কাছে মৌখিকভাবে অভিযোগ করেছে। আমি বিষয়টি নিয়ে থানায় কথা বলেছি এবং তাকে সাধারণ ডায়েরি করার পরামর্শ দিয়েছি।

মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাত হোসেন বলেন, ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। ইতোমধ্যে পেজের এডমিনদের ধরতে পুলিশ কাজ করছে।