• শুক্রবার, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:১৮ দুপুর

বানর দেখানোর কথা বলে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ

  • প্রকাশিত ০৬:০৮ সন্ধ্যা এপ্রিল ১২, ২০১৯
যৌন হেনস্থা
প্রতীকী ছবি

মেয়েটির মা ও বড় ভাইয়ের অভিযোগ, ঘটনার দিন বিকেলেই তারা পাথরঘাটা থানায় মামলা করতে গেলে ওসি মামলা নিতে রাজি হননি।

বরগুনার পাথরঘাটায় অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে বানর দেখানোর কথা বলে বনে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় পুলিশ মামলা নিতে গড়িমসি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 

ভুক্তভোগী কিশোরী ও তার স্বজনদের অভিযোগ, উপজেলার হরিণঘাটা বনে বৃহস্পতিবার (১২ এপ্রিল) সকালে এ ঘটনা ঘটে। এরপর তারা মামলা করতে চাইলে পাথরঘাটা থানায় গেলে ওসি মামলা নেননি। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে  পুলিশ।

এদিকে, ওই কিশোরীর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য পাথরঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

কিশোরী জানায়, মাসখানেক আগে পাথরঘাটা উপজেলার সদর ইউনিয়নের শাহজাহান প্যাদার ছেলে ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ী জলিল প্যাদার সঙ্গে তার মোবাইল ফোনে পরিচয় হয়। পরিচয় গোপন করে ধীরে ধীরে তার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে অভিযুক্ত জলিল। একসময় স্বজনদের মাধ্যমে জলিলের আসল পরিচয় জানতে পারে সে।

ভুক্তভোগী কিশোরীর অভিযোগ, বৃহস্পতিবার সকালে জলিল তাকে বানর দেখানোর কথা বলে হরিণঘাটা বনে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় ওই এলাকার ট্রলার চালক আলতাফ বিষয়টি দেখে ফেলে এবং সেও তাকে ধর্ষণ করতে উদ্যত হয়। পরে তার আর্তচিৎকার শুনে স্থানীয়রা এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। 

ওই কিশোরীর মা ও বড় ভাইয়ের অভিযোগ, ঘটনার দিন বিকেলেই তারা পাথরঘাটা থানায় মামলা করতে গেলে ওসি হানিফ সিকদার মামলা নিতে রাজি হননি।

তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করে পাথরঘাটা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হানিফ সিকদার ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, মামলা করার জন্য কেউ থানায় আসেনি। বরং আমরা ঘটনাটি জানার পর তাদেরকে মামলা করতে বলেছি। 

ঘটনার একদিন অতিবাহিত হলেও কেন এখনও মামলা হয়নি জানতে চাইলে তিনি বলেন, মামলা প্রক্রিয়াধীন। 

এ বিষয়ে বরগুনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তোফায়েল আহম্মেদ ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, জড়িতদের আটক করতে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। দোষীদের কোনওভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না।