• রবিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:২৬ সকাল

মঙ্গল শোভাযাত্রা প্রতিহতের ঘোষণা কওমি শিক্ষার্থীদের

  • প্রকাশিত ০৭:৪৪ রাত এপ্রিল ১৩, ২০১৯
কওমি শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ সভা
ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সামনে নববর্ষের মঙ্গল শোভাযাত্রার বিরুদ্ধে কওমি শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ সভা। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

সভা থেকে ঘোষণা দেয়া হয় যে মঙ্গল শোভাযাত্রা প্রতিহত করার জন্যে ফজরের নামাজ পরেই মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা মাঠে থাকবে

পহেলা বৈশাখে মঙ্গল শোভাযাত্রার বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিক্ষোভ মিছিল এবং প্রতিবাদ সভা করেছেন শহরের  কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা। শনিবার বিকালে বিক্ষোভ মিছিল শেষে শহরের প্রেসক্লাবের সামনে এই প্রতিবাদ সভা করেন তারা।

প্রতিবাদ সভায় বক্তরা বলেন, দেশের শতকরা ৯০ ভাগ মানুষ মুসলিম। তাই ইসলামী এই রাষ্ট্রে পহেলা বৈশাখের শোভাযাত্রা হতে পারেনা। এগুলো হিন্দু এবং খ্রিস্টানদের সংস্কৃতি ; এগুলো ভারতীয় সংস্কৃতির অংশ। তাই ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ দেশের কোথাও এই শোভাযাত্রা হতে দেয়া হবেনা।

পরে সভা থেকে ঘোষণা দেয়া হয়, আগামীকাল পহেলা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রা প্রতিহত করার জন্যে ফজরের নামাজ পরেই মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা মাঠে থাকবে। কোনো ভাবেই মঙ্গল শোভাযাত্রা করতে দেয়া হবেনা। 

এছাড়াও নুসরাত হত্যার প্রসঙ্গ টেনে বক্তারা বলেন, নুসরাত আলিয়া মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ছিলেন। কিছু কিছু মিডিয়ার কর্মীরা তাকে কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থী বলে আখ্যায়িত করেছেন যা সত্যি নয়। যারা নুসরাত পুড়িয়ে মেরেছে আমরা তাদের বিচার দাবি করছি।    

এসময় নারী-পুরুষ সহশিক্ষার কারণেই নুসরাতের হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে বলেও দাবি করেন কওমি শিক্ষার্থীরা।

কওমি ছাত্র ঐক্য পরিষদ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার সভাপতি হাফেজ মাওলানা মাসুদুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আনাস সরকার, হাফেজ মাওলানা ইসহাক আল মামুন, হাফেজ মাওলানা শাকিল আহমেদ, মাওলানা ওয়ালিউল্লাহ প্রমুখ।