• শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৬ রাত

তথ্যমন্ত্রী: ইউটিউব চ্যানেল এবং অনলাইন কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণ করা হবে

  • প্রকাশিত ১০:০৮ রাত এপ্রিল ১৩, ২০১৯
ড. হাছান মাহমুদ
ফাইল ছবি।

'দেশের বাকি ৬টি বিভাগীয় শহরে বিটিভির কেন্দ্র স্থাপন করার প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে'

অসত্য সংবাদ প্রচার রোধে সম্প্রচার নীতিমালার মাধ্যমে ইউটিউব চ্যানেল ও অনলাইন কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণ করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

শনিবার দুপুরে বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) চট্টগ্রাম কেন্দ্রের নয় ঘণ্টা সম্প্রচার কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন বলে ফোকাস বাংলার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

তিনি বলেন, "প্রযুক্তির কল্যাণে অনলাইন গণমাধ্যম ব্যাপক প্রসার লাভ করেছে। সবাই সবার আগে সর্বশেষ সংবাদ প্রকাশ করতে চায়। সেটি করতে গিয়ে অনেক ক্ষেত্রে অসত্য সংবাদ পরিবেশিত হয়। এক্ষেত্রে এক ধরনের অস্থিরতা তৈরি হয়। অনেকেই আবার ইউটিউব ব্যবহার করে বিভিন্ন চ্যানেল করছেন। আমরা সম্প্রচার নীতিমালার মাধ্যমে ইউটিউব চ্যানেল ও অনলাইন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি"।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী বলেন, "বর্তমান প্রধানমন্ত্রী গণমাধ্যমবান্ধব। তাঁর আমলেই বেসরকারি টিভি চ্যানেলের ব্যাপক প্রসার লাভ করে। বর্তমানে ৪৪টি বেসরকারি টেলিভিশনের লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। সম্প্রচারে আছে ৩৩টি চ্যানেল। গত ১০ বছরে ৪০ শতাংশ পত্রিকা প্রকাশ বৃদ্ধি পেয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক ধরনের বিপ্লব তৈরি হয়েছে।তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের জন্য আজ একটি ঐতিহাসিক দিন। এই চ্যানেলকে শীঘ্রই টেরিস্টোরিয়াল এর আওতায় আনা হবে"। এসময় দেশের বাকি ৬টি বিভাগীয় শহরে বিটিভির কেন্দ্র স্থাপন করার প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

ড. হাছান মাহমুদ আরো জানান, "বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনের (এফডিসি) আউটলেট করার চিন্তাভাবনা করছে সরকার। চলচ্চিত্রের শুটিংয়ের পাশাপাশি এই আউটলেট থেকেও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করা যাবে"।

"চট্টগ্রামে বর্তমানে এক লাখ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে। শুধু চট্টগ্রাম শহরে জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে দশ হাজার কোটি টাকা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রামের প্রতি বিশেষ নজর দিয়েছেন বলেই চট্টগ্র্রামে এমন উন্নয়নযজ্ঞ চলছে", যোগ করেন তথ্যমন্ত্রী।

এসময় অনুষ্ঠান প্রচারের সময় বাড়ার সাথে অনুষ্ঠানের মান বাড়ানোর প্রতি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বিশেষ দৃষ্টি দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুল মালেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, বিটিভি’র মহাপরিচালক এস এম হারুন-অর-রশীদ, আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।