• শনিবার, আগস্ট ২৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪১ রাত

প্রতিমন্ত্রী: ভাসানচরে রোহিঙ্গা স্থানান্তরের বিরোধী নয় জাতিসংঘ

  • প্রকাশিত ১১:৩৫ সকাল এপ্রিল ২৯, ২০১৯
পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী
বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ মিলনায়তনে মিলনায়তনে ডিপ্লোমেটিক করেসপন্ডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশের আয়োজনে ‘রোহিঙ্গা সংকট: রাখাইনে টেকসই সমাধানে আন্তর্জাতিক ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম শাহরিয়ার আলম। ছবি: ইউএনবি

প্রতিমন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোকে গঠনমূলক ভূমিকা পালন করতে পরামর্শ দেন

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম শাহরিয়ার আলম রবিবার বলেছেন, এক লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচর দ্বীপে স্থানান্তরের যে প্রকল্প সরকার নিয়েছে জাতিসংঘ তার বিরোধী নয়।

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ মিলনায়তনে (বিআইআইএসএস) মিলনায়তনে ডিপ্লোমেটিক করেসপন্ডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশের (ডিক্যাব) আয়োজনে ‘রোহিঙ্গা সংকট: রাখাইনে টেকসই সমাধানে আন্তর্জাতিক ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

জাতিসংঘের উচ্চপদস্থ তিন কর্মকর্তার বাংলাদেশ সফরে এটা পরিষ্কার হয়েছে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, "জাতিসংঘ ভাসানচর বিরোধী নয়। আমরা মনে করি না জাতিসংঘের কেউ ভাসানচর বিরোধী"।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভাসান চর নিয়ে আন্তর্জাতিক কয়েকটি সংবাদ মাধ্যমের ‘নেতিবাচক’ প্রতিবেদন নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। 

তিনি বলেন, "যথাযথ তথ্য না দিয়ে খবর প্রকাশ করায় কিছু বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে। ভাসানচর দ্বীপে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর কক্সবাজার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভয়াবহ সমস্যা মোকাবিলায় সহায়তা করবে"।

এসময় প্রতিমন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোকে গঠনমূলক ভূমিকা পালন করতে পরামর্শ দেন।

তিনি বলেন, "বর্তমান পরিস্থিতিতে ১১ লাখ মানুষকে জোরপূর্বক ঘর ছাড়া করে অন্য দেশে চলে যেতে বাধ্য করে কেউ পার পেতে পারে না"।

"সময় একটা বড় ব্যাপার। এই জটিল সমস্যা সমাধানে আমাদের ধৈর্য ধরতে হবে। সমাধান অবশ্যই হবে," যোগ করেন তিনি।

ডিক্যাব সভাপতি রাহীদ এজাজের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম শাহরিয়ার আলম।

সেমিনারে পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যায়ের (ঢাবি) আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ, বাংলাদেশে নিযুক্ত ইউএনএইচসিআর প্রতিনিধি স্টিভেন করলিস এবং ডিক্যাব সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম হাসিবও বক্তব্য দেন।