• সোমবার, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২১ রাত

পাঁচ কোটি টাকা মূল্যের কষ্টিপাথর নিয়ে উধাও দুই সহোদর!

  • প্রকাশিত ১০:০০ রাত মে ২৩, ২০১৯
কষ্টি পাথরের মূর্তি ঠাকুরগাঁও
কষ্টি পাথরের মূর্তি ঢাকা ট্রিবিউন

পুলিশ একাধিকবার অভিযান চালিয়েও পলাতক দুই ভাইয়ের কোনো হদিস পায়নি।

ঠাকুরগাঁও সদর এলাকা থেকে পাঁচ কোটি টাকা মূল্যের কষ্টি পাথরের মূর্তি নিয়ে উধাও হয়েছে দুই সহোদর। হন্যে হয়ে তাদের খুঁজছে পুলিশ। বিষয়টি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ঠাকুরগাঁও সদরের রুহিয়া থানার ওসি প্রদীপ কুমার ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, গত মঙ্গলবার রুহিয়া পশ্চিম ইউনিয়নের কশালগাঁও গ্রামের ছবি লালের দুই ছেলে পরশুরাম ও যতীন্দ্রনাথ তাদের চাচাতো ভাই ধীরেনের ট্রাক্টর নিয়ে পার্শ্ববর্তী আখানগর ইউনিয়নের ভেলারহাট গুচ্ছগ্রামের একটি পুকুরে মাটি কাটতে যায়। বেশ কিছুটা মাটি কাটার পর দুপুরে তাদের কোদালে পাথর কাটার মতো শব্দ হলে তারা মাটি কাটা বন্ধ করে দেয় এবং সেখান থেকে উদ্ধার করে একটি কষ্টি পাথরের মূর্তি।

ওসি জানান, মূর্তিটি পাওয়ার পর সেটিকে নিয়ে তারা ট্রাক্টরের মালিক ধীরেনের বাড়িতে চলে আসে। ওই বাড়িতে বসে মূর্তিটিকে পরিষ্কার করে তারা নিশ্চিত হন যে, সেটি একটি কষ্টি পাথরের বিষ্ণু মূর্তি।

ওসি প্রদীপ আরও জানান, প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে মূর্তিটির আকার ও অন্যান্য বর্ণনা শুনে এটির মূল্য কমপক্ষে ৫ কোটি টাকা বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মূর্তিটি ধোয়া-মোছার সময় ট্রাক্টরের মালিক ধীরেন ও তার বাবা-মা এবং ট্রাক্টরের হেলপার সুমন উপস্থিত ছিলেন। সুমন মূর্তিটির মাথাকাটা একটি ছবি মুঠোফোনের ক্যামেরায় ধারণ করেন। একপর্যায়ে পরশুরাম ও যতীন্দ্রনাথ মূর্তিটি নিয়ে কৌশলে সেখান থেকে সটকে পড়ে।

রুহিয়া থানা পুলিশ একাধিকবার অভিযান চালিয়েও পলাতক দুই ভাইয়ের কোনো হদিস পায়নি। তবে কষ্টি পাথরের মূর্তিটি উদ্ধারের জন্য অভিযান চালানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন রুহিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) বাবুল কুমার রায়।