• রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৫০ রাত

অস্তিত্ব সংকটে খরস্রোতা ধলেশ্বরী

  • প্রকাশিত ০২:৪৯ দুপুর মে ২৭, ২০১৯
ধলেশ্বরী
একসময়ের খরস্রোতা ধলেশ্বরী এখন মৃতপ্রায়। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

আগামী কয়েক বছরের মধ্যে আরও চর পড়ে ধলেশ্বরীর গতি একেবারে বন্ধ হয়ে যেতে পারে। যমুনা নদী থেকে বেরিয়ে আসা ধলেশ্বরীর অংশ থেকে অন্তত দশ কিলোমিটার খনন করা হলে নদী আবারও গতিশীল হবে বলে মনে করেন তারা।

টাঙ্গাইলের এক সময়ের খরস্রোতা নদী ধলেশ্বরী আজ মৃতপ্রায়। নাব্যতা হারিয়ে নদীটি এখন অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে। দুপাশে চর পড়ে প্রায় খালে পরিণত হয়েছে নদীটি। অথচ এককালে সেটি ছিল টাঙ্গাইলের অর্থনীতির প্রাণ সঞ্চালক। 

নৌপথে যাতায়াত ছাড়াও পণ্য নিয়ে বড় বড় নৌকা ও জাহাজ চলতো ধলেশ্বরী নদী দিয়ে। বৃটিশ শাসনামলে এই নদী দিয়েই কলকাতা পর্যন্ত চলতো যাত্রী ও পণ্যবোঝাই নৌকা-জাহাজ। ভারত ভাগের পরও নদীটি দিয়ে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে চলতো নৌযান। 

আগে সারা বছরই এমন অবস্থা থাকলেও বর্তমানে বর্ষা মৌসুমসহ আগে-পরে সর্বোচ্চ পাঁচ মাস নদীটি দিয়ে নৌচলাচল করে। চর পড়ে নদীটির অবস্থা এমন হয়েছে যে, শুষ্ক মৌসুমে ধলেশ্বরীর বুকে ধানসহ বিভিন্ন ফসল আবাদ হয়। পানির অপেক্ষায় নদীর তীরে পড়ে থাকে নৌকা। 

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার গোলচত্বর এলাকায় ধলেশ্বরী নদীতে সরেজমিনে দেখা যায়, নদীর পূর্বপাশে বিশাল এলাকাজুড়ে চর জেগেছে। উত্তর-পশ্চিম পাশেও চর। মূল নদীর অনেক স্থানে ধান আবাদ করা হয়েছে। একটু উঁচু জায়গায় কিছুদিন আগে আবাদ করা হয়েছিল মাস কলাই ও খেসারী। কোনো কোনো স্থানে আখ লাগানো হয়েছে। 

মাঝে মাঝে ছোট-বড় গর্তে জমে আছে পানি। অনেক জায়গা শুকিয়ে গেছে। মানুষ পারাপারের জন্য এক স্থানে কাঠ দিয়ে সাঁকো বানানো হয়েছে। সেখান দিয়ে যাতায়াতের জন্য টোল আদায় করা হয়। সে সাঁকোর নিচের অংশও শুকনা। দুইপাড়ের মানুষ হেঁটে, মোটরসাইকেল অথবা অটোরিকশা দিয়ে চলাচল করছে।

 আগামী কয়েক বছরের মধ্যে আরও চর পড়ে ধলেশ্বরীর গতি একেবারে বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে স্থানীয়দের আশঙ্কা। যমুনা নদী থেকে বেরিয়ে আসা ধলেশ্বরীর অংশ থেকে অন্তত ১০ কিলোমিটার খনন করা হলে নদীটি আবার গতিশীল হবে বলে মনে করেন তারা। 

ধলেশ্বরী পাড়ের বাসিন্দা আব্দুল আলীম জানান, গোলচত্বর থেকে অনেক পশ্চিমে ছিল যমুনা নদীর একটি শাখা। আর মূল ধলেশ্বরী নদী ছিল গোলচত্বর এলাকা দিয়ে। ১৯৮৮ সালের ভয়াবহ বন্যার আগে ধলেশ্বরী নদীতে প্রচণ্ড স্রোত ছিল। নদীও ছিল খুব গভীর। ৮৮ সালের বন্যার পর থেকে ধলেশ্বরীতে চর পড়া শুরু হয়। আর সেখানে আস্তে আস্তে গড়ে উঠে বসতি। গত পাঁচ বছরের মধ্যে অতিরিক্ত চর পড়ে নদী সরু হয়ে গেছে। 

ধলেশ্বরী নদীর পাশের মাকোরকোল গ্রামের রেজাউল করিম বলেন, আগে দেখেছি নদী অনেক প্রশস্থ এবং ছিল। ইঞ্জিনচালিত নৌকা দিয়েও নদী পার হতে বেগ পেতে হতো। ১০ বছর আগেও নদীতে খুব স্রোত থাকতো। এখন নদীর সে রূপ আর নেই। 

গোলচত্বর এলাকায় ২৫ বছর ধরে নদীতে খেয়া পারাপার ও টোল আদায় করেন আব্দুস ছালাম। তিনি বলেন, ১০ বছর আগেও নদীর এপার থেকে ওপারে নৌকা নিয়ে যেতে হলে স্রোতের কারণে অনেক ভাটিতে গিয়ে নৌকা থামাতে হতো। এখন সোজা গিয়ে নদী পার হওয়া যায়। বছরের অর্ধেকের বেশি সময় নদীতে পানি থাকে না। 

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম বলেন, ২০১০ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে, যমুনা নদী থেকে ধলেশ্বরী নদীর মুখ দেড় কিলোমিটারের মধ্যে ওঠানামা করে। বন্যার সময় উজান থেকে আসা কাদা মাটি জমে মুখে চর পরে মুখ উঁচু হয়ে গেছে। ফলে শুষ্ক মৌসুমে ধলেশ্বরীতে আর পানি থাকে না। এ নদীকে সচল করতে নতুন প্রকল্প প্রণয়নের কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। 


51
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail