• রবিবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩৩ রাত

টাকার লোভে সৎ মেয়েকে বখাটেদের হাতে তুলে দিলেন বাবা

  • প্রকাশিত ১২:৪২ দুপুর মে ২৮, ২০১৯
নির্যাতন
প্রতীকী ছবি

শনিবার দুপুরে খালার বাসা থেকে বাড়ি ফেরার পথে তাকে তুলে নিয়ে যায় বখাটেরা

আশুলিয়ায় টাকার লোভে বখাটেদের হাতে মেয়েকে তুলে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে সৎ বাবার বিরুদ্ধে ।

সোমবার (২৭ মে) সকালে আশুলিয়ার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ভুক্তভোগীর সৎ বাবাসহ পাঁচজনকে আটক করে পুলিশ। এর আগে গত রোববার (২৬ মে) বিকেলে নিজেই আশুলিয়া থানায় অভিযোগ করেন ওই নারী।

আটককৃতটা হলো-পিরোজপুর জেলার ভান্ডারিয়া থানার চরখালী গ্রামের মৃত জব্বার হাওয়ালাদারের মো. সজিব হাওলাদার (২৮), রংপুর জেলার কাওনিয়া থানার গদাই গ্রামের ওসমান শেখের ছেলে মামুন ইসলাম (২২), বরিশাল জেলার কোতায়ালীর থানর হিজলা গ্রামের গগন আলীর ছেলে নুরে আলম (২৫), গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ি থানার হরিনাথপুর গ্রামের মো. আমিরুল ইসলামের ছেলে হাবিব (২০)। এছাড়া সৎ বাবা তাইজুল ইসলামের (৪০) বাড়ি গাইবান্ধা জেলার সাদুল্লাহপুর থানার পশ্চিমখামার দশলেী গ্রামের বাসিন্ধা।

জানা গেছে, গত শনিবার (২৫ মে) দুপুরে খালার বাসা থেকে কাঠগড়া এলাকার ভাড়া বাড়িতে ফেরার পথে তাকে তুলে নিয়ে যায় বখাটেরা। আশুলিয়া থানার ওসি তদন্ত কর্মকর্তা জাবেদ মাসুদ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এ প্রসঙ্গে আশুলিয়া থানার এস আই ফজিকুল ইসলাম বলেন, “শনিবার দুপুরে খালার অসুস্থতার কথা শুনে কাঠগড়ার নিজ বাসা থেকে জিরাবো যায় ওই নারী। ফেরার পথে সৎ বাবা তাইজুল ইসলাম ও খালার বাসার কেয়ার টেকার সজিব তাকে কৌশলে সিএনজিতে তুলে দেন। পরে ইয়ারপুর এলাকার একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। সেখানে আগে থেকেই অবস্থান নিয়ে মামুন ইসলাম, নুর আলম ও হাবিব তার ওপর নির্যাতন চালায়।”

আশুলিয়া থানার ওসি জাবেদ মাসুদ বলেন, “আসামিদের মধ্যে মামুন গৃহবধুর ও তার সৎ বাবার বাড়িতে নিয়মিত যাতায়াত করতেন। বিভিন্ন সময়ে মামুন সৎ বাবাকে আর্থিক সহযোগিতাও করতেন । টাকার লোভে পড়েই সৎ বাবা বখাটেদের হাতে তার মেয়েকে তুলে দিয়েছেন । এ ঘটনায় আটকৃতরা এক দিনের রিমান্ডে আশুলিয়া থানায় রয়েছেন।”