• সোমবার, আগস্ট ২৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৬ রাত

নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য সুখবর আসছে

  • প্রকাশিত ১০:২১ সকাল জুন ৩, ২০১৯
উদ্যোক্তা
সঠিক পরিকল্পনা ও পরিশ্রমই ব্যবসাকে শিখরে নিয়ে যায়। ছবি: পিক্সাবে

তৈরি পোশাক শিল্প রফতানির ক্ষেত্রে যেভাবে প্রণোদনা পেয়ে আসছে, রফতানি সম্প্রসারণের লক্ষে আরো কিছু পণ্যে আমরা এ ধরনের প্রণোদনা দিতে যাচ্ছি। আগামী বাজেটে তাই কয়েকটি পণ্যের জন্য আলাদা বরাদ্দ রাখা হবে।

প্রথমবারের মত আসন্ন ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে নতুন উদ্যোক্তাদের সহায়তার জন্য ‘স্টার্ট আপ ফান্ড’ বা ‘নতুন উদ্যোক্তা তহবিল’ গঠন করা হচ্ছে। এই তহবিল গঠনের উদ্দেশ্য হলো নতুন উদ্যোক্তা তৈরির মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা।

গত ৩০ মে, বৃহস্পতিবার ঢাকায় প্রেস ইন্সটিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) আয়োজিত অর্থনৈতিক সাংবাদিকদের এক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. হাবিবুর রহমান এ তথ্য জানান। 

হাবিবুর রহমান বলেন, “গত কয়েকবছর যেভাবে উচ্চ প্রবৃদ্ধি হচ্ছে,কর্মসংস্থান সেই গতিতে হচ্ছে না। অনেকেই একে কর্মসংস্থানহীন প্রবৃদ্ধি বলছে। তাই কর্মসংস্থান তৈরির লক্ষে নতুন বিশেষত তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য স্টার্ট আপ ফান্ড গঠন করা হচ্ছে। এই তহবিলের সহায়তায় উদ্যোক্তা তৈরির সঙ্গে সঙ্গে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।’

প্রকৃত উদ্যোক্তারাই যেন সহজে এই তহবিলের সহায়তা পান, এ জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান তিনি। তবে তহবিলের আকার কেমন হবে বা কি পরিমাণ অর্থ তহবিলে বরাদ্দ থাকবে এ বিষয়ে তিনি বিস্তারিত কিছু বলেননি।

এদিকে, রফতানি বহুমুখীকরণের লক্ষে আগামী বাজেটে বিশেষ উদ্যোগ থাকবে বলে জানান অর্থমন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ এই কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, “তৈরি পোশাক শিল্প রফতানির ক্ষেত্রে যেভাবে প্রণোদনা পেয়ে আসছে, রফতানি সম্প্রসারণের লক্ষে আরো কিছু পণ্যে আমরা এ ধরনের প্রণোদনা দিতে যাচ্ছি। আগামী বাজেটে তাই কয়েকটি পণ্যের জন্য আলাদা বরাদ্দ রাখা হবে।”

আগামী অর্থবছরে দেশে এক কোটি নতুন করদাতা সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে বলে হাবিবুর রহমান জানান। 

তিনি বলেন, “আয়কর রাজস্ব আয় বাড়ানোর লক্ষে আসন্ন বাজেটে বিশেষ ব্যবস্থা থাকবে। এর আওতায় কর জরিপ পরিচালনার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ হাজার শিক্ষার্থীকে নিয়োগ দেয়া হবে। ৩ মাস অথবা ৬ মাস ধরে এই শিক্ষার্থীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে নতুন করদাতা অনুসন্ধান করবে।” এর মাধ্যমে এক বছরে এক কোটি নতুন করদাতা সনাক্ত করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

পুঁজিবাজারে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের জন্য আসন্ন বাজেটে বিশেষ ব্যবস্থা থাকবে বলে তিনি জানান।