• শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৫২ রাত

যৌন হয়রানির অভিযোগে চাকুরিচ্যুত পপুলারের সেই ডাক্তার

  • প্রকাশিত ০৭:০৫ রাত জুন ১৭, ২০১৯
যৌন হয়রানি
প্রতীকী ছবি

যৌন হয়রানির অভিযোগ আসার পর তাকে চাকরিতে আর না রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ

যৌন হয়রানির অভিযোগ ওঠায় রাজধানীর পপুলার হাসপাতালের সেই চিকিৎসককে চাকুরীচ্যুত করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সোমবার এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন ওই হাসপাতালের মানবসম্পদ ও প্রশাসন বিভাগের প্রধান অচিন্ত্য কুমার নাগ।

তিনি বলেন, "যৌন হয়রানির অভিযোগ আসার পর তাকে চাকরিতে আর না রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। অভিযুক্ত চিকিৎসককে এই হাসপাতালে আর চেম্বার করতে দেওয়া হবে না"।

আপনাদের সঙ্গে কথা বলার সময়ে অভিযুক্ত চিকিৎসক কী বলেছেন জানতে চাইলে অচিন্ত্য কুমার নাগ বলেন, "তিনি জানিয়েছেন ওই শিক্ষার্থী তার বন্ধুর মেয়ের বন্ধু। এরকম হবার কথা নয়। তবে যে যদি আমার ব্যবহারে অসন্তুষ্ট হয়ে থাকে তার জন্য আমি ক্ষমা চেয়েছি, দুঃখ প্রকাশ করেছি"।

"তারপরই তাকে আমরা হাসপাতালে আসতে বলেছি যেন সামনাসামনি কথা বলতে পারি। তিনি জানিয়েছেন তিনি আসবেন। ওভার ফোনেতো আর কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া বা দেওয়া যায় না", যোগ করেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত শনিবার রাজধানীর ধানমন্ডির পপুলার হাসপাতালের চর্মরোগ ও যৌনরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মো. শওকত হায়দারের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনেন এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, শনিবার ডা. শওকতকে দেখাতে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে যান ওই তরুণী। চিকিৎসক তাকে ফোন করে জানান, তিনি পপুলারে নেই, পাশের সিটি ব্যাংক ভবনের লিফটের ২-এ আছেন। সেখানে যাওয়ার পর চিকিৎসক তরুণীকে ইনজেকশন দেওয়ার সময় আপত্তিকর আচরণ করেন। শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেওয়ার চেষ্টা করেন। তরুণী নিজেকে নিজেকে ছাড়িয়ে নেন। বাইরে বের হওয়ার সময় চিকিৎসক তার গালের ইনফেকশন দেখতে চান। ইনফেকশন দেখার ছলে ডাক্তার ওই তরুণীর গালে চুম্বন করেন।

জানা যায়, পপুলারে সপ্তাহে দুই দিন বসতেন অভিযুক্ত ডা. শওকত। এ বিষয়ে মন্তব্য নেওয়ার জন্য তার মুঠোফোনে বারবার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।