• মঙ্গলবার, এপ্রিল ০৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:২৮ রাত

কোস্টগার্ডের কাছে ৩টি প্যাট্রোল ভেসেল হস্তান্তর করল খুলনা শিপইয়ার্ড

  • প্রকাশিত ০৯:১২ সকাল জুন ২১, ২০১৯
কোস্টগার্ড
খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেডের নির্মিত বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনীর তিনটি ইনসার প্যাট্রোল ভেসেল। ছবি: সংগৃহীত

ইনসার প্যাট্রোল ভেসেল ছাড়াও খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড বাংলাদশ কোস্ট গার্ডের জন্য টাগ বোট, ভাসমান ক্রেন ও পন্টুন তৈরি করেছে। ইতোপূর্বে বাংলাদশ নৌবাহিনীর জন্য এ প্রতিষ্ঠানটি পাঁচটি প্যাট্রোল ক্রাফট ও দুটি লার্জ প্যাট্রোল ক্রাফট তৈরি করে।

খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেডের নির্মিত বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনীর তিনটি ইনসার প্যাট্রোল ভেসেল হস্তান্তর, দুইটি হাইস্পিড বোট (ফেরি) এবং দুইটি হাইস্পিড বোট (ডাইভিং) এর কিল লেয়িং অনুষ্ঠান বৃহস্পতিবার দুপুরে খুলনা শিপইয়ার্ড প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়। 

অনুষ্ঠান প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দীন।

মোস্তফা কামাল বলেন, “প্রাচীনকালে বাংলাদেশ জাহাজ নির্মাণ-দক্ষতায় সমৃদ্ধ দেশ ছিল। ঔপনিবেশিক আমলে এ ধারায় ছেদ পড়। এক সময়ের লাভজনক প্রতিষ্ঠান খুলনা শিপইয়ার্ড রুগ্ন শিল্পে পরিণত হয়। ১৯৯৯ সাল বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুলনা শিপইয়ার্ডকে নৌবাহিনীর হাতে তুলে দেওয়ার যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত নেন। দক্ষ ব্যবস্থাপনায় প্রতিষ্ঠানটি আজ মাথা তুল দাঁড়িয়েছে ও পুনঃরায় লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে।”

তিনি বলেন,  “দেশে একশটির অধিক ইপিজেড স্থাপন করে ৫০ লাখের অধিক কর্মসংস্থান সৃষ্টির পরিকল্পনা সরকারের আছে। দেশ আজ উন্নয়নশীল দেশের কাতারে এসেছে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ভিশন- ২০২১, ভিশন - ২০৪১ ও ডেল্টা প্লান- ২১০০ বাস্তবায়নের পথে অগ্রসর হচ্ছে বাংলাদেশ। খুলনা শিপইয়ার্ড নিজেক রুগ্ন প্রতিষ্ঠানের অবস্থান হতে সমৃদ্ধ জায়গায় নিয়ে আসার পাশাপাশি বিদেশিক মুদ্রা দেশে রাখার ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখছে। অদূর ভবিষ্যতে প্রতিষ্ঠানটি বিদেশে জাহাজ রপ্তানির সক্ষমতা অর্জন করবে।”

অনুষ্ঠানে জানানা হয়, বিগত ২৩ মে ২০১৮ ইনসার প্যাট্রোল ভেসেল তিনটির লঞ্চিং অনুষ্ঠিত হয়। বর্তমান সরকারের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিবেশি দেশ ভারত ও মায়ানমারের সাথে বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা নির্ধারিত হওয়ায় বাংলাদেশ এক বিশাল সমুদ্র এলাকা অর্জন করেছে। সমুদ্র সম্পদে সমৃদ্ধ বাংলাদেশের সমুদ্রসীমায় অতদ্র প্রহরী হিসেবে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় টহল প্রদান, সমুদ্র বন্দরের নিরাপত্তা, সন্ত্রাস দমন, মাদকের বিস্তার রোধ, মানব পাচার প্রতিরোধ, সমুদ্রচারীদের জীবন রক্ষা এবং সর্বোপরি বন্দর-ইকোনোমি সংশ্লিষ্ট কার্যাবলিতে নিরাপত্তা প্রদান করে চলেছে। এ দায়িত্ব সুষ্ঠুভাবে পালন নবনির্মিত দ্রুতগতি সম্পন্ন ইনসার প্যাট্রোল ভেসেলসমূহ গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

অনুষ্ঠান আরও জানানা হয়, ইনসার প্যাট্রোল ভেসেল ছাড়াও খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড বাংলাদশ কোস্ট গার্ডের জন্য টাগ বোট, ভাসমান ক্রেন ও পন্টুন তৈরি করেছে। ইতোপূর্বে বাংলাদশ নৌবাহিনীর জন্য এ প্রতিষ্ঠানটি পাঁচটি প্যাট্রোল ক্রাফট ও দুটি লার্জ প্যাট্রোল ক্রাফট তৈরি করে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ডের মহাপরিচালক রিয়ার এডমিরাল এম আশরাফুল হক  ও খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কমোডোর আনিছুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।