• বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২৭ রাত

ইভটিজিংয়ে বাঁধা দেওয়ায় কামড়ে মেয়ের বাবার কান ছিঁড়ে নিলো বখাটে!

  • প্রকাশিত ১০:৪০ সকাল জুন ২১, ২০১৯
সাতক্ষীরা
গুরুতর আহত অবস্থায় আজিজুল ইসলামকে সখিপুরস্থ দেবহাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন স্থানীয়রা। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

ঘটনায় তিনি একাধিকবার মেয়েকে উত্যক্ত না করার জন্য আবু জাফরকে অনুরোধ করেন। কিন্তু এরপরও আবু জাফর তার মেয়েকে উত্যক্ত করা থেকে বিরত না হয়ে বরং তার উপর চরমভাবে ক্ষুব্ধ হয়।

সাতক্ষীরার দেবহাটায় ইভটিজিংয়ে বাঁধা দেওয়ায় এক মেয়ের বাবার কান কামড়ে ছিঁড়ে নিয়েছে এক বখাটে।

২০ জুন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার ঘলঘলিয়া মোড়ে ঘটনাটি ঘটে।

কান হারানো মেয়ের বাবা আজিজুল ইসলাম খোকন ঘলঘলিয়া গ্রামের রহমতুল্যা সরদারের ছেলে। তিনি বর্তমানে সখিপুরস্থ দেবহাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

অন্যদিকে, ঘটনার মূল হোতা বখাটে আবু জাফর ঘলঘলিয়া গ্রামের রিয়াজুল সরদারের ছেলে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজিজুল ইসলাম খোকন জানান, দীর্ঘদিন ধরেই উপজেলার সরকারি খানবাহাদুর আহছানউল্লা কলেজে এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষে পড়ুয়া তার মেয়েকে উত্যক্ত করে আসছিলো ঘলঘলিয়া গ্রামের রিয়াজুল সরদারের বখাটে ছেলে আবু জাফর। ঘটনায় তিনি একাধিকবার মেয়েকে উত্যক্ত না করার জন্য আবু জাফরকে অনুরোধ করেন। কিন্তু এরপরও আবু জাফর তার মেয়েকে উত্যক্ত করা থেকে বিরত না হয়ে বরং তার উপর চরমভাবে ক্ষুব্ধ হয়।

এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আজিজুল ইসলাম খোকন বাড়ি থেকে পাশ্ববর্তী ঘলঘলিয়া বাজারে গেলে আবু জাফর ওপর হঠাৎ ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং কামড়ে বাম কান ছিঁড়ে নেয়।

এ সময় গুরুতর আহত অবস্থায় আজিজুল ইসলামকে সখিপুরস্থ দেবহাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন স্থানীয়রা। এ ব্যপারে আবু জাফরের বিরুদ্ধে দেবহাটা থানায় মামলা দায়ের করার প্রস্তুাতি চলছে বলে জানিয়েছে আহতের পরিবার।

দেবহাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার সাহা বলেন, “আমাদের কাছে কেউ এখনও অভিযোগ করেনি। তবে বিষয়টি শুনেছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”