• বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৮ রাত

সরকারি হেল্পলাইনে কল দিয়ে বিয়ে ঠেকালো তিন স্কুলছাত্রী

  • প্রকাশিত ১২:৫৭ দুপুর জুন ২৩, ২০১৯
টাঙ্গাইল

টাঙ্গাইলের সখীপুরে নিজেদের বিয়ে ঠেকাতে ৯৯৯ ও ৩৩৩ এ কল করে তারা

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলায় জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এবং সরকারি তথ্য ও সেবা ৩৩৩ এ ফোন দিয়ে নিজেদের বাল্যবিয়ে ঠেকিয়েছে তিন স্কুলছাত্রী। 

শুক্রবার (২১ জুন) উপজেলার তিনটি গ্রামে ওই তিন ছাত্রীর বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। এদিন শুক্রবার গভীর রাত পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ ওই তিন ছাত্রীকে বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা করে। 

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার রাতে সখীপুর পাইলট সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজের দশম শ্রেণীর ছাত্রী ইসরাত জাহান শিম্মীর বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। তাকে টাঙ্গাইলের এক আইনজীবীর সঙ্গে বিয়ে দিতে ঠিক করেন অভিভাবকেরা। বিয়েতে ইসরাতের মত না থাকায় সে ৯৯৯ এ ফোন করে সাহায্য চায়। পুলিশ উপজেলার কালিয়া গ্রামের মামার বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠান বন্ধ করে দিয়ে ইসরাতের মা হালিমা বেগম ও মামা মাসুমকে থানায় নিয়ে আসে। 

একই রাতে সখীপুর উপজেলার দেওবাড়ি গ্রামের আবুল কাশেমের মেয়ে ও নাকশালা জমির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী রাবেয়ার বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। তাকে পাশ্ববর্তী বাসাইল উপজেলার মোতাহার আলীর ছেলে সুমনের সঙ্গে বিয়ের আয়োজন করেন অভিভাবকেরা। এ সময় কোনো এক প্রতিবেশীর সহযোগিতা চান রাবেয়া। তার সহযোগিতায় ৯৯৯ এ ফোন করলে পুলিশ বিয়ে বন্ধ করে দিয়ে রাবেয়ার মা-বাবাকে ধরে থানায় নিয়ে আসে। 

অন্যদিকে উপজেলার নামদারপুর ফাযিল (ডিগ্রি) মাদরাসার নবম শ্রেণীর ছাত্রী মোমেনা আক্তার নিজের বিয়ে ঠেকাতে সরকারি তথ্য ও সেবা ৩৩৩ এ ফোন দিলে পুলিশ তার বিয়েও বন্ধ করে দিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য মোশারফ হোসেনের সহযোগিতায় মোমেনাকে থানায় নিয়ে আনেন। 

এ ব্যাপারে সখীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আমিনুর রহমান বলেন, ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মুচলেকা নেওয়া হয় ওই তিন ছাত্রীর অভিবাবকদের। পরে সতর্ক করে ওই তিন ছাত্রীর অভিভাবকদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।