• বুধবার, ডিসেম্বর ১১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:০০ দুপুর

ব্ল্যাকমেইল করে ২০ ছাত্রীকে ধর্ষণ, প্রধান শিক্ষকসহ গ্রেপ্তার ২

  • প্রকাশিত ০৫:০৭ সন্ধ্যা জুন ২৭, ২০১৯
নারায়ণগঞ্জ শিক্ষক
২০ শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির অভিযোগে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে দুই শিক্ষককে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব ঢাকা ট্রিবিউন

ভুক্তভোগীদের পরিবারগুলো থেকে এখনও কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। র‍্যাব স্বপ্রণোদিত হয়েই ইনভেস্টিগেশন করেছে।

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে বেসরকারি একটি স্কুলের ২০ জনেরও বেশি ছাত্রীকে চার বছর ধরে ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির অভিযোগে দুই শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-১১। এ সময় অভিযুক্ত একজনের মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ এবং ক্যামেরার মেমোরিতে ২০ জনেরও বেশি ছাত্রীর সঙ্গে ধারণ করা অশ্লীল ছবি খুঁজে পায় র‌্যাব।

অভিযুক্তরা হলেন- সিদ্ধিরগঞ্জের অক্সফোর্ড স্কুলের স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক জুলফিকার ওরফে রফিকুল ইসলাম (৫৫) এবং সহকারী শিক্ষক আরিফুল ইসলাম সরকার ওরফে আশরাফুল (৩০)।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জ ২নং ওয়ার্ডের মিজমিজি কান্দাপাড়া মাদ্রাসা রোড এলাকার অক্সফোর্ড স্কুলে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। র‌্যাব-১১-র সহকারী পরিচালক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলেপ উদ্দিন মুঠোফোনে ঢাকা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

আলেপ উদ্দিন জানান, গোপন সূত্রে সিদ্ধিরগঞ্জের অক্সফোর্ড স্কুলের সহকারী শিক্ষক আশরাফুল একাধিক ছাত্রীকে দীর্ঘদিন ধরে ধর্ষণ ও যৌন হয়রানি করে আসছে, এমন খবর পেয়ে অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারের পর তার মোবাইলে ভয়াবহ সব ডকুমেন্টস পাওয়া যায়। 

তিনি বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে জানিয়েছে, এ কাজে স্কুলের প্রধান শিক্ষক জুলফিকার তাকে বিভিন্নভাবে সহায়তা করে আসছিলেন। 

তবে ভুক্তভোগীদের পরিবারগুলো থেকে এখনও কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। র‍্যাব স্বপ্রণোদিত হয়েই ইনভেস্টিগেশন করেছে। ভুক্তভোগী পরিবারগুলোকে ডাকা হবে। তারা মামলা করলে সে অনুযায়ী মামলা চলবে অন্যথায় সাইবার অ্যাক্ট অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে, জানান আলেপ উদ্দিন।

এদিকে, ঘটনা জানাজানি হলে কয়েকশ' মানুষ স্কুলের সামনে জড়ো হয়ে অভিযুক্ত শিক্ষকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন।