• শুক্রবার, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৪ সকাল

আন্তর্জাতিক র‌্যাংকিংয়ে ৭২১-এ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

  • প্রকাশিত ০৮:১৪ রাত জুন ২৭, ২০১৯
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়
ছবি: সংগৃহীত

উপাচার্য বলেন, গবেষণাক্ষেত্রে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আন্তরিকতা, নিরন্তর প্রচেষ্টা, একাগ্রতা, অনুশীলন ও অনুধাবনে অভিনিবেশ সাফল্যের এ আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি এনে দিয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রতিষ্ঠিত গবেষণা প্রতিষ্ঠান নিয়ে স্পেনের সিগমো ল্যাব ও যুক্তরাষ্ট্রের স্কপাস পরিচালিত জরিপে আন্তর্জাতিক র‌্যাংকিং এ স্থান করে নিয়েছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়। প্রথম এক হাজার বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে তাদের সামগ্রিক অবস্থান ৭২১। এর মধ্যে সামাজিক প্রভাব ক্যাটাগরিতে অবস্থান প্রথম এক হাজারের মধ্যে ২৪২, গবেষণা ৪৩২ এবং উদ্ভাবনীতে ৪৪৯ তম স্থানে।

এছাড়া, ওই তালিকায় স্থান পাওয়া বাংলাদেশের ১৫টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে উদ্ভাবনী ক্যাটাগরিতে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান প্রথম, গবেষণায় দ্বিতীয় ও সামাজিক প্রভাব ক্যাটাগরিতে ৬ষ্ঠ।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান এই প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক র‌্যাংকিং তালিকায় স্থান পাওয়ায় এবং দেশের তালিকার শীর্ষে অবস্থান করায় অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়ে এক বার্তা দিয়েছেন বলে জানিয়েছে বাসস।

বার্তায় তিনি বলেন, দেশে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার মানোন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর সদিচ্ছা, সরকারের অবিরাম সহায়তা ও ইউজিসির ঐকান্তিক প্রচেষ্টা এই অর্জনে মুখ্য ভূমিকা রেখেছে। এ জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। 

তিনি আরও বলেন, গবেষণাক্ষেত্রে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আন্তরিকতা, নিরন্তর প্রচেষ্টা, একাগ্রতা, অনুশীলন ও অনুধাবনে অভিনিবেশ সাফল্যের এ আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি এনে দিয়েছে। এ সাফল্য সুসংহত করে ভবিষ্যতে আরও এগিয়ে যাওয়ার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সবার প্রতি আহ্বান জানান উপচার্য।

উল্লেখ্য, উচ্চশিক্ষার প্রতি একনিষ্ঠ গবেষণা, উদ্ভাবন ও প্রভাব তিনটি বিষয়কে ভিত্তি ধরে শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের তালিকা করেছে স্পেনের সিমাগো ল্যাব ও যুক্তরাষ্ট্রের স্কপাস। সিমাগো ইনস্টিটিউশনস (এসআইআর) নামে নিয়মিত প্রকাশিত এ তালিকার চলতি বছরের সংস্করণে স্থান পেয়েছে দেশের ১৫টি বিশ্ববিদ্যালয় ও ১টি গবেষণা প্রতিষ্ঠান। বিশ্বের ৬ হাজার ৪৬১টি বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের এ তালিকায় প্রথম এক হাজারের মধ্যেই রয়েছে বাংলাদেশের ১৫টি বিশ্ববিদ্যালয় ও একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান। সম্প্রতি এ সংক্রান্ত র‌্যাংকিং আন্তর্জাতিক মিডিয়া ও অনলাইনে প্রকাশিত হয়েছে।

তালিকার অন্য প্রতিষ্ঠানগুলো হলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি), বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট), জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি, খুলনা ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি ও মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি।