• সোমবার, অক্টোবর ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০২:১৮ দুপুর

সেদিন কী হয়েছিল শাহীনের সঙ্গে, জানালো গ্রেপ্তার নাইমুল

  • প্রকাশিত ০৯:৫৬ রাত জুলাই ১, ২০১৯
শাহিন
ছবি: সংগৃহীত

বর্তমানে শাহীন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

সাতক্ষীরায় ভ্যানচালক শাহীন মোড়লের (১৬) মাথা থেঁতলে দিয়ে ভ্যান ছিনতাইয়ের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত শুক্রবার শাহীনের সঙ্গে কী হয়েছিল সেই ঘটনার বর্ণনা মিলেছে তাদের মুখ থেকে।  

আজ সোমবার (১ জুলাই) সাতক্ষীরা ও জেলার বাইরের বিভিন্ন স্থান থেকে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার (এসপি) সাজ্জাদুর রহমান।

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন-যশোরের কেশবপুর উপজেলার মঙ্গলকোট গ্রামের বাবর আলীর ছেলে ছিনতাই চক্রের প্রধান নাইমুল, সাতক্ষীরার ঝাউডাঙ্গা বাজারের বারেক আলী ও কলারোয়ার উপজেলার মির্জাপুর মোড়ের আরশাদ পাড় ওরফে নুনু মিস্ত্রি।

নাইমুলের উদ্ধৃতি এসপি সাজ্জাদুর রহমান বলেন, গত ২৭ জুন নাইমুলসহ অজ্ঞাত তিনজন গোপন বৈঠক করে। তারা শাহীনকে ফোন করে পরদিন শুক্রবার সাতক্ষীরার কলারোয়ায় যাওয়ার জন্য ভ্যানটি ভাড়া নেয়। এসময় তারা ৩৫০ টাকা ভাড়ায় চুক্তি করে। পরদিন সকালে শাহীন ভ্যান নিয়ে কেশবপুর বাজারে গিয়ে নাইমুলসহ তিনজনকে তুলে নেয়। সেখান থেকে তারা ভ্যানে করে কেশবপুর হাসপাতালের সামনে দিয়ে সরসকাটি চৌগাছা হয়ে ধানদিয়া জামতলা মোড়ে পাশে ফাঁকা জায়গায় পৌঁছায়। এ সময় তারা শাহীনকে ভ্যান থামাতে বলে। 

সাতক্ষীরায় শাহীন মোড়লের মাথা থেঁতলে দিয়ে ভ্যান ছিনতাইয়ের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ছবি : ঢাকা ট্রিবিউন 

ভ্যান থামালে চারজন শাহীনকে বলে ভ্যান রেখে বাড়ি চলে যেতে বলে। এ নিয়ে বাড়িতে কিছু বললে মেরে ফেলার হুমকিও দেওয়া হয়। ভ্যান দিতে রাজি না হওয়ায় তারা ভ্যানের সিটের লোহার সঙ্গে শাহীনের মাথায় আঘাত করে। এতে শাহীন অচেতন হয়ে গেলে তাকে পাটক্ষেতে ফেলে রেখে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে তারা ঝাউডাঙ্গা বাজারে গিয়ে বারেক আলীর কাছে ভ্যানের চারটি ব্যাটারি ও নুনু মিস্ত্রির কাছে ভ্যানটি বিক্রি করে টাকা সমান ভাগে ভাগ করে নেয়।

শাহীন যশোরের কেশবপুর উপজেলার মঙ্গলকোট গ্রামের হায়দার আলী মোড়লের ছেলে। সে স্থানীয় একটি মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্র। বর্তমানে শাহীন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।