• বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪০ রাত

জাবির ফজিলাতুন্নেছা হলের দুই কক্ষে থাকেন ১১৪ জন ছাত্রী

  • প্রকাশিত ০৭:২৪ রাত জুলাই ৯, ২০১৯
জাবি
হলে সিটের দাবিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের মানববন্ধন। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

‘একটা ছোট গণরুমে ১১৩ জন একসাথে থাকা আর সম্ভব হচ্ছে না। আমাদের পড়াশোনার ক্ষতি হচ্ছে এবং রোগব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছি।’

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে আসন নিশ্চিতের দাবিতে মানববন্ধন করেছে হলটির দ্বিতীয় বর্ষের (৪৭তম আবর্তন) ছাত্রীরা। পরে হল প্রাধ্যক্ষ আগামী এক মাসের মধ্যে আবাসন সমস্যা সমাধানের লিখিত প্রতিশ্রুতি দিলে কর্মসূচি প্রত্যাহার করে তারা।

৯ জুলাই, মঙ্গলবার বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন প্রশাসনিক ভবনের সামনে মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে ছাত্রীরা জানান, ৪৭তম আবর্তনের ১১৪ জনকে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে সংযুক্ত করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তাদের মধ্যে ৮৭ জনকে হলের কমনরুমে থাকার ব্যবস্থা করা হয়। দীর্ঘ সতেরো মাস ধরে তারা কমনরুমে অবস্থান করছেন। ছাত্রীরা একাধিকবার লিখিত ও মৌখিকভাবে আসন সমস্যা সমাধানের দাবি জানালেও তা পূরণ হয়নি। 

মানববন্ধনে আইন ও বিচার বিভাগের ছাত্রী আফসিন সুলতানা এ্যামি বলেন, “আমাদেরকে বার বার মিথ্যা আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছিল ঈদের পর সিট দেওয়া হবে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। আমরা প্রভোস্ট ও ভিসি বরাবর আবেদন দিয়েছিলাম কিন্তু কোনো জবাব পাইনি।”

নৃবিজ্ঞান বিভাগের খাদিজাতুল কোবরা সেপু বলেন, “একটা ছোট গণরুমে ১১৪ জন একসাথে থাকা আর সম্ভব হচ্ছে না। আমাদের পড়াশোনার ক্ষতি হচ্ছে এবং রোগব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছি।”

মানববন্ধনের এক পর্যায়ে হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. মুজিবুর রহমান ছাত্রীদের সঙ্গে হলে আলোচনার আহ্বান জানান। শিক্ষার্থীরা তা প্রত্যাখান করে লিখিত প্রতিশ্রুতির দাবি জানান। শিক্ষার্থীদের অব্যাহত দাবির মুখে হল প্রাধ্যক্ষ এক মাসের মধ্যে আবাসন সমস্যার সমাধান করবেন বলে লিখিত প্রতিশ্রুতি দেন। পরে ছাত্রীরা মানববন্ধন কর্মসূচি বাতিল করেন।