• মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৫ রাত

রিফাত হত্যা: দুই আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

  • প্রকাশিত ০৭:৩৩ রাত জুলাই ১৮, ২০১৯
রিফাত শরীফ
বরগুনায় নিহত রিফাত শরীফ। ছবি: সংগৃহীত

'যে যেভাবে সম্পৃক্ত ছিলো আদালতের কাছে সে সেভাবেই জবানবন্দি দিয়েছে'

বরগুনার আলোচিত রিফাত হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি মো. আল কাইয়ুম   (রাব্বি আকন) ও জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার আরিয়ান শ্রাবন এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সন্ধ্যা ৬টার দিকে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় তারা। 

ঢাকা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বরগুনা সদর থানার পরিদর্শক(তদন্ত) হুমায়ুন কবির।

তিনি জানান, একেকজনের অপরাধের ধরণ একেক রকম। কেউ সরাসরি হত্যাকাণ্ডে জড়িত ছিলো, কেউ আবার সহযোগী ছিলো। যে যেভাবে সম্পৃক্ত ছিলো আদালতের কাছে সে সেভাবেই জবানবন্দি দিয়েছে। 

প্রসঙ্গত, রিফাত হত্যা মামলায় এ পর্যন্ত মামলার প্রধান স্বাক্ষী মিন্নিসহ ১৫ জনকে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে পুলিশ। গত ২ জুলাই ভোরে মামলার প্রধান আসামি নয়ন বন্ড পুলিশের সঙ্গে বরগুনা সদর থানার পরিদর্শক(তদন্ত)‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়। এখন পর্যন্ত ১২ আসামি আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে রিফাত শরীফকে। তার স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি হামলাকারীদের থামাতে চেয়েও পারেননি। গুরুতর আহতাবস্থায় রিফাতকে ওইদিন বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। 

এ ঘটনায় রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখ ও পাঁচ-ছয় জনকে অজ্ঞাত আসামি করে বরগুনা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।