• মঙ্গলবার, আগস্ট ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০২:২১ দুপুর

ছেলেধরা সন্দেহে নারীকে হত্যার ঘটনায় ৫০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা

  • প্রকাশিত ০৩:০৯ বিকেল জুলাই ২১, ২০১৯
নির্যাতন
প্রতীকী ছবি

শনিবার সন্তানকে স্কুলে ভর্তির বিষয়ে খোঁজ নিতে যান গণপিটুনির শিকার তাসলিমা, দুইবছর আগে স্বামীর সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদের পর থেকে চার ও এগারো বছর বয়সী দুইশিশুকে নিয়ে একাই থাকতেন তিনি   

রাজধানীর উত্তর বাড্ডায় ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনিতে হত্যার শিকার হয়েছেন তসলিমা বেগম রেনু (৪০) নামের এক নারী। এ হত্যার ঘটনায় অজ্ঞাতনামা ৪০০ থেকে ৫০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

শনিবার (২০ জুলাই) রাতে বাড্ডা থানায় গণপিটুনিতে নিহত নারীর বোনের ছেলে সৈয়দ নাসির উদ্দিন টিটু এই মামলা করেন বলে নিশ্চিত করেছেন বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম। 

তিনি বলেন, “সন্তানকে স্কুলে ভর্তি করতে যেয়ে গণপিটুনিতে প্রাণ হারালেন এক তাসলিমা বেগম রেনু (৪০) নামে এক মা।”

নিহতের ভাগ্নে নাসির উদ্দিন মুঠোফোনে বলেন, “নিহত তাসলিমা বেগম রেনু (৪০), মহাখালীর ওর্য়ালেস গেইটে দুই ছেলেসহ থাকতেন। তবে এর আগে তিনি স্কুলের পাশে আলী মোড় এলাকায় স্বামী তসলিম হোসেনের সাথে পরিবার থাকতেন। গত দুই বছর পূর্বে পারিবারিক কলহের কারণে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এরপর থেকে সন্তানদের নিয়ে মহাখালীতে থাকেন।” 

তিনি বলেন, “শনিবার সকালে উত্তর বাড্ডায় ঐ স্কুলে গিয়েছিলেন সন্তান কে ভর্তি করার জন্য খোঁজখবর নিতে। আর সেখানে তাকে নির্মম ভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। পুলিশ প্রশাসন থাকতে কীভাবে ঐ এলাকার লোকজন তাকে পিটিয়ে হত্যা করতে পারলো, এমন প্রশ্ন তুলে পুরো ঘটনার বিচার দাবি করেন তিনি।”

উল্লেখ্য, শনিবার সকালে উত্তর বাড্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ছেলে ধরা সন্দেহে ঐ নারীকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।