• বুধবার, ডিসেম্বর ১১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪১ দুপুর

মন্ত্রীরা আসছেন তাই ক্লাস বন্ধ, ৭০০ শিক্ষার্থী প্রচণ্ড রোদে

  • প্রকাশিত ০৮:১৯ রাত জুলাই ২২, ২০১৯
s
সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে উপজেলায় সোমবার মন্ত্রীদের আগমন উপলক্ষে স্কুলের ক্লাস বন্ধ করে সাত শতাধিক শিক্ষার্থীকে প্রচণ্ড রোদে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। ছবি : ঢাকা ট্রিবিউন

কাজিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান সিরাজী বলেন, 'সম্ভবত তারা মন্ত্রীদের এক নজর দেখতে এসেছেন।'

সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে উপজেলায় বন্যা আক্রান্ত মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণের জন্য ত্রাণ ও দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান ও পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীমের উপস্থিতি উপলক্ষে স্কুলের ক্লাস বন্ধ করে সাত শতাধিক শিক্ষার্থীকে প্রচণ্ড রোদে দাঁড় করিয়ে রাখার অভিযোগ উঠেছে।  

আজ সোমবার (২২ জুলাই) দুপুরে প্রশাসন বানভাসি মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণের আয়োজন করে। 

জানা গেছে, সোমবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত উপজেলার নির্মাণাধীন শহীদ এম মুনসুর আলী ইকোপার্কে শিক্ষার্থীদের প্রচণ্ড রোদের দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। অতিথিরা আসার আগে থেকেই মাইজবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা রঙিন ব্যানারসহ সাত শতাধিক শিক্ষার্থীকে রোদের মধ্যে লাইন করে দাঁড় করিয়ে রাখেন। এ সময় তারা প্রচণ্ড রোদে অস্বস্তি বোধ করলেও শিক্ষকদের ভয়ে কিছু বলতে পারেনি। 

শিক্ষার্থীরা জানায়, আসতে না চাইলেও জোর করে শিক্ষকরা তাদেরকে নিয়ে এসেছেন।

ঘটনাস্থলে থাকা বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম মোল্লা বলেন, প্রধান শিক্ষকের নির্দেশে কয়েকজন শিক্ষকসহ শিক্ষার্থীদের আনা হয়েছে। 

মন্ত্রী আসবেন সেজন্য বিদ্যালয়ের ক্লাস বন্ধ রেখে শিক্ষার্থীদের ব্যানারসহ রোদে দাঁড় করিয়ে রাখা বিষয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কেএম শফীউল্লাহ বলেন, 'বিষয়টি আমার জানা নেই।' 

কাজিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান সিরাজী বলেন, 'মন্ত্রী আাসছেন ত্রাণ দিতে। কিন্তু স্কুলের শিক্ষক বা শিক্ষার্থীদের আসতে বলা হয়নি। তবে ত্রাণ বিতরণ স্থানটি বিদ্যালয়ের সামান্য দূরে হওয়ায় সম্ভবত তারা মন্ত্রীদের এক নজর দেখতে এসেছেন।'

কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো.জাহিদ হাসান সিদ্দিকী দাবি করেন, 'আমার ধারণা অতি উৎসাহ থেকে এমনটি করেছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষার্থীরা। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে আগাম আমন্ত্রণ বা নির্দেশনা দেওয়াও হয়নি।