• শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:৫৫ সকাল

স্বামীকে ছেলেধরা সাজানোয় স্ত্রী-শ্বশুর-শাশুড়ি গ্রেপ্তার

  • প্রকাশিত ০৬:০৫ সন্ধ্যা জুলাই ২৪, ২০১৯
ছেলেধরা
বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে স্বামীকে ছেলেধরা সাজিয়ে গণপিটুনির আয়োজন করার অভিযোগে মঙ্গলবার তার স্ত্রী, শ্বশুর ও শাশুড়িকে গ্রেপ্তার করা হয়। ছবি : ঢাকা ট্রিবিউন

হঠাৎ করেই শিরিন ও তার বাবা-মা ছেলেধরা বলে চিৎকার শুরু করেন।

বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলায় রিবুল হোসেন (২৩) নামের এক ভ্যানচালককে ছেলেধরা সাজিয়ে গণপিটুনির আয়োজন করার অভিযোগে তার স্ত্রী, শ্বশুর ও শাশুড়িকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

গতকাল মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) সন্ধ্যায় উপজেলার সারিয়াকান্দি থানার কাছে কাঁঠালতলা এলাকায় এঘটনা ঘটে। 

বুধবার সারিয়াকান্দি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সুব্রত কুমার ঘোষ বাদি হয়ে ওই তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। 

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন-সারিয়াকান্দি সদর ইউনিয়নের চরগোসাইবাড়ি গ্রামের মৃত সাহেব আলীর ছেলে ভিক্ষুক সিফাত প্রামাণিক (৪৬), তার স্ত্রী বিউটি বেগম (৩৬) ও মেয়ে শিরিন আক্তার (২০)।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উপজেলার নারচি ইউনিয়নের গণকপাড়া গ্রামের আমিরুল ইসলামের ছেলে ভ্যানচালক রিবুল হোসেন কয়েক বছর আগে সিফাত প্রামাণিকের মেয়ে শিরিন আক্তারকে বিয়ে করেন। তাদের সংসারে দুই বছরের একটি ছেলে আছে। সংসারে অভাব ও দাম্পত্য কলহে শিরিন কিছুদিন আগে ভিক্ষুক বাবার বাড়িতে চলে যান। রিবুল স্ত্রী-সন্তানের খরচ না দিলেও মাঝে-মধ্যে শ্বশুরবাড়ি গিয়ে ছেলেকে দেখে যেতেন।

জানা যায়, শিরিন ও তার বাবা-মা মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে রিবুলকে সারিয়াকান্দি থানার পাশে কাঁঠালতলা এলাকায় যেতে বলেন। সেখানে শ্বশুর সিফাত, শাশুড়ি বিউটি ও স্ত্রী শিরিন উপস্থিত ছিলেন। রিবুল সেখানে যাওয়ার পর তার ছেলেকে কোলে নিয়ে আদর করেন। 

এক পর্যায়ে রিবুল ছেলেকে বাড়িতে নিয়ে যেতে চান। তখন স্ত্রী শিরিন আপত্তি করেন। এসময় হঠাৎ করেই শিরিন ও তার বাবা-মা ছেলেধরা বলে চিৎকার শুরু করেন। মুহূর্তের মধ্যে আশপাশের লোকজন সেখানে ছুটে যান। থানা থেকে পুলিশও আসে। এসময় রিবুল পালিয়ে প্রাণ রক্ষা করেন। 

বিস্তারিত জানার পর পুলিশ রিবুলের স্ত্রী শিরিন, শ্বশুর সিফাত ও শাশুড়ি বিউটিকে গ্রেপ্তার করে।

সারিয়াকান্দি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আল-আমিন জানান, পারিবারিক কলহে ভ্যানচালক রিবুলকে শায়েস্তা করতেই তাকে ছেলেধরা সাজানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। এঘটনায় জড়িত থাকায় তার স্ত্রী, শ্বশুর ও শাশুড়িকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।