• শনিবার, জানুয়ারী ১৮, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২০ রাত

প্রয়োজনে বার্ন ইউনিটে ডেঙ্গু রোগীদের জন্য ইউনিট খোলা হবে

  • প্রকাশিত ০৭:১৬ রাত জুলাই ৩১, ২০১৯
বার্ন ইউনিট
শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারী ইনস্টিটিউট। ছবি: মেহেদি হাসান/ঢাকা ট্রিবিউন

ঢামেক হাসপাতালে ডেঙ্গু মোকাবেলায় পর্যাপ্ত ওষুধ রয়েছে বলেও পরিচালক জানান

ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকলে প্রয়োজনে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে একটি ইউনিট খোলা হবে। সেখানে রেখে ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেয়া হবে। 

বুধবার (৩১ জুলাই) দুপুরে ঢামেক হাসপাতালের কনফারেন্স রুমে এক সংবাদ সম্মেলন হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. এ কে এম নাছির উদ্দীন একথা জানান। 

তিনি বলেন, ডেঙ্গু রোগীদের সেবার জন্য ইতোমধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ মোতাবেক সকল চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ছুটি বাতিল ও কর্মস্থল ত্যাগ না করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

তিনি আরও বলেন, আমাদের এখানে যারা ভর্তির যোগ্য তাদেরকে ভর্তি রেখে বিনা পয়সায় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করানো হচ্ছে। যারা ভর্তির যোগ্য নয় তাদের ভর্তি নেয়া হচ্ছে না। 

নাছির উদ্দীন বলেন, আমাদের এখানে ডেঙ্গু রোগীদের মধ্যে শিশুদের সংখ্যাই বেশি। আমরা দেখছি, প্রয়োজনে তাদের জন্য ঢামেক হাসপাতালের পুরাতন ভবনে অস্থায়ী আনসারদের থাকার স্থান ব্যবহার করা হবে।

ঢামেক হাসপাতালে ডেঙ্গু মোকাবেলায় পর্যাপ্ত ওষুধ রয়েছে বলেও তিনি জানান।

বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন এর সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, হাসপাতালে সিনিয়র চিকিৎসক, কর্মকর্তা, নার্স ও সংশ্লিষ্টরা উক্ত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন। 

ঢামেকের ডেঙ্গু রোগীর পরিসংখ্যান

জানুয়ারিতে ডেঙ্গু রোগী এসেছিলেন - ৩ জন, তারা চিকিৎসা নিয়ে চলে যান
ফেব্রুয়ারিতে - নেই
মার্চে - ৪ জন
এপ্রিলে - ৩ জন
মে মাসে - ৮ জন, তারা চিকিৎসা নিয়ে চলে যান
জুনে - ১৩৫ জন, এদের মধ্যে ১৩৪ জন চিকিৎসা শেষে চলে যান
জুলাইতে - ২২৪২ জন, এদের মধ্যে ১৫৮১ জন চিকিৎসা নিয়ে চলে গেছেন

সর্বমোট রোগীর সংখ্যা ছিল ২৩৯৫ জন, এদের মধ্যে ১৭৩৩ জন চিকিৎসা নিয়ে চলে গেছেন। এই হাসপাতালে ডেঙ্গুতে মৃত্যু হয়েছে ১০ জনের। 

বুধবার (৩১ জুলাই) সকাল পর্যন্ত হাসপাতালে মোট ভর্তি রয়েছেন ৬৫২ জন।