• বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:০০ বিকেল

প্রেমিকার ফোন ফেরত দিতে গিয়ে কিশোর খুন, গ্রেপ্তার ৫

  • প্রকাশিত ০৩:৪১ বিকেল আগস্ট ১, ২০১৯
হত্যা
প্রতীকী ছবি।

নিহতের বাবা বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন

নারায়ণগঞ্জে প্রেমিকার ফোন দিতে এসে খুন হয়েছে ফয়সাল হোসেন (১৮) নামের এক কিশোর। এঘটনায় পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বুধবার (৩১ জুলাই) সন্ধ্যায় শহরের খানপুর এলাকার পোল স্টার ক্লাব এলাকায় এঘটনা ঘটে। রাতেই ওই কিশোরের বাবা বাদী হয়ে সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

নারায়ণগঞ্জ সদর থানা পুলিশের পরিদর্শক (অপারেশন) জয়নাল আবেদিন ঢাকা ট্রিবিউনকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেপ্তাররা হলো- নিহত কিশোরের প্রেমিকার বড় ভাই মো. আসিফ (২০), সাকিব (১৫), মিলন (১৮), সানজিল (১৭) ও সায়েম (১৮)।

নিহত ফয়সাল হোসেন শহরের এনায়েত নগর এলাকার নুরুজ্জামান হোসেনের ছেলে। পেশায় সে একজন রেফ্রিজারেটর মেকানিক ছিল।

মামলা ও পরিবারসূত্রে জানা যায়, বরফকল এলাকায় সামিরা নামের এক মেয়ের সঙ্গে ফয়সালের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। সামিরা নষ্ট হয়ে যাওয়া একটি মুঠোফোন ফয়সালের মাধ্যমে মেরামতের জন্য পাঠিয়েছিল। সেই ফোনটি ফেরত দেওয়ার জন্য সামিরার বড় ভাই আসিফ বাসায় ডেকে আনে ফয়সালকে। ফোনটি হস্তান্তর করে ফিরে যাওয়ার সময় আসিফ তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। এনিয়ে তাদের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক শুরু হয়। একপর্যায়ে আসিফ তাদের বন্ধুদের ডেকে এনে লাঠিসোটা দিয়ে মারধর করলে আহত হয় ফয়সাল। গুরুতর আহত অবস্থায় খানপুর ৩০০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের পরিবারের অভিযোগ, আগে থেকেই বোনের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে ফয়সালকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হচ্ছিল। 

নিহতের বড় ভাই সজিব হোসেন জানান, “বুধবার বিকেল ৩টা নাগাদ সামিয়াকে দিয়ে ফয়সালকে বাড়িতে ডাকিয়ে নেন আসিফ। সেজন্যই সে বিকেলে বের হয়েছিলো। পরে রাতে জানতে পারি ফয়সালকে ওরা মেরে ফেলেছে।”

সদর মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক (অপারেশন) জয়নাল আবেদিন জানান, মৃত্যুর সঠিক কারণ এখনই বলা যাচ্ছে না। প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, হত্যাকাণ্ডটি প্রেমঘটিত।  রাতেই ৫জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।