• বুধবার, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৩০ দুপুর

আবারও ভিআইপি'র জন্য ঘাটে ফেরির অপেক্ষা!

  • প্রকাশিত ০৪:০৪ বিকেল আগস্ট ১০, ২০১৯
ফেরি কর্ণফুলী
মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়ার কর্ণফুলী ফেরি ঢাকা ট্রিবিউন

দেরি করার প্রমাণ আছে জানালে কোনো সদুত্তর না দিয়ে সংযোগ কেটে দেন ফেরিটির চালক

মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে ভিআইপি পারাপারের জন্য ঘাটে ‘কর্ণফুলী’ নামের একটি ফেরিকে আটকে রাখার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার (১০ আগস্ট) সকাল ১১টার দিকে ঘাটে অপেক্ষমান যাত্রী ও গাড়ি চালকরা এ অভিযোগ করেন।

তারা জানান, কোনো গাড়ি লোড না করে ফেরিটি কমপক্ষে ১ ঘণ্টা ঘাটে দাঁড়িয়েছিল। তবে কর্তৃপক্ষের দাবি, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) কমিশনার (অনুসন্ধান) ড. মোজাম্মেল হক খান দাপ্তরিক কাজে মাদারীপুরে যাচ্ছেন। তাকে প্রটোকল দেওয়ার জন্য সরকারি চিঠি পাঠানো হয়েছে। সে অনুযায়ী তার গাড়ি ‘কর্ণফুলী’ ফেরিতে পার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে ফেরিটির চালক মনিরুজ্জামান মনির প্রথমে বিষয়টি অস্বীকার করেন। পরে বলেন, “১০ মিনিটের মতো সময় লেগেছিল ফেরিটি লোড-আনলোড করতে।” ফেরি দেরি করার প্রমাণ আছে জানালে কোনো সদুত্তর না দিয়ে সংযোগ কেটে দেন তিনি।

শিমুলিয়া ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক সাফায়েত আহমেদ ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “দুদক কমিশনারের জন্য ১০ মিনিটের বেশি দেরি করা হয় নি। তখন ছোট গাড়িগুলোকে রো-রো ফেরিতে দেওয়া হচ্ছিল। তার জন্য ফেরি আটকে রাখা হয়নি। দুদক কমিশনার ড. মোজাম্মেল হক খান ও পুলিশের সাবেক আইজিপি শহিদুল হককে ভিআইপি হিসেবে নয়, ‘বিশেষ সম্মান’ দেখিয়ে তাদের গাড়ি আগে ফেরিতে ওঠানো হয়েছে। কর্ণফুলী ফেরিতে তাদের গাড়ির সঙ্গে অন্যান্য যানবাহনও ছিল।”

শিমুলিয়া ঘাটের ভিআইপি ফেরিঘাট। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউনতিনি আরও বলেন, “আমাদের এখানে ৪ নম্বর ঘাটটির নাম ‘ভিআইপি ঘাট’ রাখা হয়েছে মন্ত্রণালয় থেকে। আমরা ইতোমধ্যে নাম পরিবর্তনের আবেদন করেছি। ঈদের পরে নাম পরিবর্তন করা হবে।”

বিআইডব্লিউটিসি শিমুলিয়া ঘাটের উপ-মহাব্যবস্থাপক নাসির মোহাম্মদ চৌধুরী বলেন, “আমি ৩ নম্বর ঘাটে দায়িত্বে ছিলাম। ওখানে সাফায়েত (সহকারী ব্যবস্থাপক) ছিলেন। ফেরি ১০ মিনিটের বেশি দেরি করেনি। একটা ফেরি লোড হতেও ১০ মিনিট সময় লাগে। আপনি প্রয়োজনে আমাদের লগবই চেক করতে পারেন। কোনো আপত্তি নাই।”

শিমুলিয়া ঘাটের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মুরাদ জানান, “দুদক কমিশনার ড. মোজাম্মেল হক খান শিমুলিয়া ঘাট দিয়ে মাদারীপুরের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। তবে সেজন্য ফেরি আটকানো হয়নি। তিনি একটি ছোট ফেরিতে গিয়েছিলেন। ভিআইপি কেউ গেলে বিআইডাব্লিউটিসি ফেরির ব্যবস্থা করে থাকে। চিঠি দিয়ে আগে জানানো হয়েছে। এটি তার দাপ্তরিক সফর।”