• শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৪৭ সকাল

দুই লঞ্চে ফেরির ধাক্কা : দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেলেন ৩শতাধিক যাত্রী

  • প্রকাশিত ০৪:৫৩ বিকেল আগস্ট ১৯, ২০১৯
ফেরি
ফাইল ছবি

কাঁঠালবাড়ি ঘাট লঞ্চ মালিক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি তোতা মিয়া হাওলাদার জানান, ফেরি মাস্টারের অদক্ষতার কারণে মাত্র ২০মিনিটের ব্যবধানে একই চ্যানেলে পরপর দু’টি লঞ্চের সাথে ধাক্কা খায় ফেরিটি

মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি ও শিমুলিয়া নৌপথে পদ্মানদীর লৌহজং টার্নিং পয়েন্টে একটি ডাম্ব ফেরির সাথে দু’টি যাত্রীবোঝাই লঞ্চের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। 

রবিবার (১৮ আগস্ট) রাত ৮টার দিকে ঘটা এদুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ৫ যাত্রী। বড়ধরনের দুর্ঘটনা থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন ৩শতাধিক যাত্রী। 

বিআইডব্লিটিএ কাঁঠালবাড়ি ঘাট ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সূত্র জানায়, কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে যাত্রীবোঝাই এমভি সুরভী ও এমভি আশিক নামে দু’টি লঞ্চ শিমুলিয়ার উদ্দেশে ছেড়ে যায়। লঞ্চ দু’টিতে অন্তত ৩ শতাধিক যাত্রী ছিল।

এরপর সুরভী লঞ্চটি কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে ছেড়ে পদ্মানদীর লৌহজং টার্নিং পয়েন্টে এসে গতি কমিয়ে দেয়। তখন বিপরীতদিক থেকে আসা একটি ডাম্প ফেরির সাথে ধাক্কা লাগলে এমভি সুরভী লঞ্চটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। 

এঘটনার ২০ মিনিট পর লঞ্চ এমভি আশিকের সঙ্গে একইস্থানে আবারো ধাক্কা খায় ফেরিটি। এরফলে লঞ্চটি চরের ওপর উঠে যায়। এসময় ওই লঞ্চের ছাদ থেকে দু’জন যাত্রী পানিতে পড়ে গেলে অন্যযাত্রীদের সহযোগিতায় তাদের উদ্ধার করা হয়। পরে দু’টি লঞ্চই ক্ষতিগ্রস্ত অবস্থায় ডুবোচরে আটকে যায়। এরপর কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে যাত্রীশূন্য লঞ্চের মাধ্যমে যাত্রীদের উদ্ধার করে আনা হয়।

শিবচর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আসাদুজ্জামান মুঠোফোনে বলেন,  “নদীর লৌহজং টার্নিং পয়েন্টের পদ্মা সেতুর নদী শাসনের কাজ চলমান থাকায় চ্যানেলটি এখন সরু অবস্থায় রয়েছে। ডাম্ব ফেরি চ্যানেল অতিক্রম করতে পরিধি বেশি প্রয়োজন হয়। একারণেই ত্রিমুখী সংঘর্ষটি ঘটে।”

এদিকে, কাঁঠালবাড়ি ঘাট লঞ্চ মালিক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি তোতা মিয়া হাওলাদার জানান, “ফেরি মাস্টারের অদক্ষতার কারণে মাত্র ২০মিনিটের ব্যবধানে একই চ্যানেলে পরপর দু’টি লঞ্চের সাথে ধাক্কা খায় ফেরিটি।”