• সোমবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:২৫ দুপুর

২০২১ সালের কলকাতা বইমেলা বঙ্গবন্ধুর নামে উৎসর্গ করার সিদ্ধান্ত

  • প্রকাশিত ০৭:৪৮ রাত আগস্ট ৩০, ২০১৯
কলকাতা পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ডের সভা
রাজধানীর সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনিস্টিটিউটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন বাস্তবায়ন কমিটির কার্যালয়ে কলকাতা পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ডের সভা। বাসস

এর পাশাপাশি বইমেলার থিম কান্ট্রি হিসেবে বাংলাদেশকে বেছে নিয়েছে কলকাতা পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ড

২০২১ সালের আন্তর্জাতিক কলকাতা বইমেলা শেখ মুজিবুর রহমানের নামে উৎসর্গ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কলকাতা পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ড। এর পাশাপাশি ২০২১ সালের বইমেলার থিম কান্ট্রি হিসেবে বাংলাদেশকে বেছে নেওয়া হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (২৯ আগস্ট) রাজধানীর সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনিস্টিটিউটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন বাস্তবায়ন কমিটির কার্যালয়ে এক সভায় গিল্ডের প্রতিনিধিরা এই সিদ্ধান্ত নেন বলে নিশ্চিত করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি'র প্রধান সমন্বয়ক ড.কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী।

তিনি বলেন, "২০২১ সালে আন্তর্জাতিক কলকাতা বইমেলা "বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে উৎসর্গ করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে কলকাতা পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ড। এছাড়াও ২০২১ সালের বইমেলার থিম কান্ট্রি হিসেবে বাংলাদেশকে বেছে নিয়েছেন তারা। প্রথমবারের মতো এধরনের উদ্যোগ নিয়েছে তারা।"

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, "বিশ্বজুড়ে বাংলা ভাষাভাষিদের প্রীতিবন্ধনে আবদ্ধ করতে বাঙালির সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরণা বঙ্গবন্ধু। কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলা বঙ্গবন্ধুর নামে উৎসর্গ করার মধ্য দিয়ে এই সত্য আবারো প্রমাণিত হলো।"

ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন কলকাতা পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ডের সভাপতি ও পত্রভারতীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ত্রিদিবকুমার চট্টোপাধ্যায় এবং গিল্ডের সাধারণ সম্পাদক ও দে’জ পাবলিশিং-এর কর্ণধার সুধাংশুশেখর দে।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, তথ্য সচিব আবদুল মালেক, সংস্কৃতি সচিব ড. মো. আবু হেনা মোস্তফা কামাল, জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের পরিচালক মিনার মনসুর, বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদ এবং পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির সভাপতি মো. আরিফ হোসেনসহ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও বাংলা একাডেমির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।