• মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৩৯ রাত

পররাষ্ট্রমন্ত্রী: আসামে নাগরিকদের বাদ পড়া নিয়ে বাংলাদেশের উদ্বেগ নেই

  • প্রকাশিত ০৯:০৩ রাত আগস্ট ৩১, ২০১৯
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন। ছবি : সৈয়দ জাকির হোসেন

তিনি বলেন, এ বিষয়ে ভারতের আশ্বাসের প্রতি বিশ্বাস রাখে বাংলাদেশ

ভারতের আসামে চূড়ান্ত জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) থেকে ১৯ লাখের বেশি মানুষের বাদ পড়ার বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশের উদ্বিগ্ন হওয়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে ভারতের আশ্বাসের প্রতি বিশ্বাস রাখে বাংলাদেশ।

শনিবার (৩১ আগস্ট) রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে মন্ত্রী জানান, তারা ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শংকরের ঢাকা সফরের সময় ২০ আগস্টের বৈঠকে আগেভাগেই এ বিষয়টি উত্থাপন করেছিলেন।

"আপনারা শুনেছিলেন...তিনি (জয়শংকর) স্পষ্ট বলেছিলেন যে এটি ভারতের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার এবং (বাংলাদেশের জন্য) কোনো সমস্যা হবে না," বলেন ড. মোমেন। 

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিশ্ব গতিশীল এবং এখানে অনেক ঘটনা ঘটবে ও তার ব্যবস্থাপনাও করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, "উদ্ভূত সমস্যা এবং সেই সাথে উদ্ভূত সমাধানও থাকবে।"

ড. মোমেন আরও বলেন, ১১ লাখের অধিক রোহিঙ্গার উপস্থিতিতে বাংলাদেশ যে সমস্যা মোকাবিলা করছে সে বিষয়টি তিনি ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে আছে। দেশে শ্রমিকসহ গরিব ও সাধারণ মানুষ, এমনকি যাদের কোনো শিক্ষা নেই তাদেরও কাজের অভাব নেই। ‘তাই, আমি বিশ্বাস করি না যে আমাদের দেশের মানুষ এ মুহূর্তে প্রতিবেশী দেশে যাবে। যদি তারা সেখানে গিয়েও থাকেন তাহলে সেটি ছিল ১৯৭১ ও ১৯৪৭ সালের আগে।’

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামের এনআরসি তালিকা থেকে বাদ পড়েছে ১৯ লাখের বেশি মানুষের নাম। শনিবার সকালে প্রকাশিত তালিকায় চূড়ান্তভাবে ঠাঁই হয়েছে ৩ কোটি ১১ লাখ মানুষের। এনআরসি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই আলোচনা হচ্ছে। সকাল ১০টায় অনলাইনে তালিকা প্রকাশ করা হয়। তালিকা প্রকাশের পর ১৯ লাখ মানুষের ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তায় পড়ে গেল। তাদের অবৈধ অভিবাসী হিসেবে চিহ্নিত করে বাদ দেয়া হয়েছে।