• সোমবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:৩৪ দুপুর

অর্থাভাবে ছেলের চিকিৎসা না করাতে পেরে মায়ের আত্মহত্যা

  • প্রকাশিত ০৮:৩৮ রাত সেপ্টেম্বর ১, ২০১৯
আত্মহত্যা
প্রতীকী ছবি।

ছেলের চিকিৎসার জন্য বিত্তশালীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও কোন ফল না পেয়ে হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েন তিনি

নীলফামারীর সৈয়দপুরে অর্থাভাবে ক্যান্সারে আক্রান্ত ছেলের চিকিৎসা করাতে না পারায় সাবিনা বেগম (৪৫) নামে এক নারী বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন।

রবিবার (১ সেপ্টেম্বর) ভোরে এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে বলে নিশ্চিত করেছেন সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহজাহান পাশা। সাবিনা বেগম উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নের খামাতপাড়া এলাকার মনোয়ার হোসেনের স্ত্রী।

পুলিশ ও পারিবারিক সুত্রে জানা যায়,  সাবিনা বেগমের ছেলে সবুজ (২৫) ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন থেকে শয্যাশায়ী। অর্থাভাবে তার চিকিৎসা করাতে পারছিলেন না পরিবারের সদস্যরা। ছেলের চিকিৎসার জন্য যেটুকু সহায় সম্বল ছিল তাও শেষ হয়ে যায়। এর ফলে বন্ধ হয়ে যায় ছেলের চিকিৎসা। পরে ছেলের চিকিৎসার জন্য বিত্তশালীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও কোন ফল না পেয়ে সাবিনা বেগম হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েন। বিগত কয়েকদিন যাবত তিনি ঠিকমত খাবারও গ্রহণ করছিলেন না। প্রচণ্ড হতাশায় শনিবার (৩১ আগস্ট) দিবাগত রাত আনুমানিক ৩ টার দিকে বিষপান করেন তিনি।

পরে বাড়ির লোকজন তার গোঙ্গানীর আওয়াজ পেয়ে বিষপানের বিষয়ে জানতে পারেন। তারা দ্রুত তাকে উদ্ধার করে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় দায়িত্বরত চিকিৎসক তাৎক্ষনিক তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। রংপুর নেয়ার পথেই সাবিনা বেগমের মৃত্যু হয়। 

খবর পেয়ে সৈয়দপুর থানার পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে এবং ময়নাতদন্তের জন্য নীলফামারী সদর আধুনিক হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

সৈয়দপুর থানার ওসি শাহজাহান পাশা এপ্রসঙ্গে ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, "এই ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।"