• শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৬ রাত

সাউন্ডবক্স বাজিয়ে-পেট্রোল ঢেলে মাকে পুড়িয়ে হত্যা!

  • প্রকাশিত ০৮:৫৫ রাত সেপ্টেম্বর ১, ২০১৯
বগুড়া
নেশার টাকা না পেয়ে মাকে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগে বগুড়ায় সোহানুর খোকন মণ্ডলকে রোববার পুলিশে দেওয়া হয়। ছবি : ঢাকা ট্রিবিউন

হত্যার আগে রশি দিয়ে মার হাত-পা বেঁধে ঘরের মেঝেতে ফেলে কম্বল দিয়ে ঢেকে দেন খোকন।

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় সোহানুর রহমান খোকন মণ্ডল (৩২) নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে নেশার টাকা না পেয়ে মাকে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। রোববার (১ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৫টার দিকে উপজেলার চিকাশী ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ওই নারীর নাম খুকি বেগম (৬৫)। এ ঘটনার পর প্রতিবেশিরা খোকন মণ্ডলকে আটক করে পুলিশে দেয়।

প্রতিবেশিরা জানান, হত্যার আগে রশি দিয়ে মার হাত-পা বেঁধে ঘরের মেঝেতে ফেলে কম্বল দিয়ে ঢেকে দেন খোকন। মায়ের চিৎকার যাতে কেউ শুনতে না পায় সেজন্য ঘরে উচ্চ শব্দে সাউন্ডবক্স বাজানো হয়। 

পুলিশ ও প্রতিবেশি ফিরোজ মাহমুদ হিরা জানান, খোকন গজারিয়া গ্রামের আবদুস সামাদ মন্ডলের ছেলে। তিনি কোনো কাজ-কর্ম করেন না। নেশার টাকার না পেলে বাবা-মাকে নির্যাতন করতেন। রোববার খোকন তার মায়ের কাছে পাঁচ হাজার টাকা দাবি করেন। টাকা না দেওয়ায় তিনি মায়ের ওপর ক্ষুব্ধ হন। পরে বিকেল ৫টার দিকে মা খুকি বেগমের ঘরে ঢুকে তার হাত-পা বাঁধেন খোকন। এরপর তাকে মেঝেতে ফেলে কম্বল চাপা দিয়ে মোটরসাইকেলের পেট্রোল নিয়ে মায়ের শরীরের আগুন ধরিয়ে দেন। এতে খুকির পুরো শরীর ঝলসে যায়। পরে প্রতিবেশিরা তাকে উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে পাঠান। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে গাবতলী উপজেলার পোড়াদহ গোলাবাড়ি এলাকায় পৌছালে খুকি বেগমের মৃত্যু হয়। 

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল জানান, খোকন নেশার টাকার জন্য বাবা-মায়ের ওপর নির্যাতন চালাতেন। কয়েকদিন আগে তার স্ত্রী বাবা বাসায় চলে গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, এসব কারণে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে মায়ের শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়েছেন।