• বুধবার, নভেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৪৪ রাত

রোহিঙ্গা ক্যাম্প ইনচার্জ পাভেলকে প্রত্যাহার

  • প্রকাশিত ০৪:০২ বিকেল সেপ্টেম্বর ২, ২০১৯
শামীমুল হক পাভেল
উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সিআইসির দায়িত্বে থাকা শামীমুল হক পাভেলকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। ঢাকা ট্রিবিউন

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একটি আদেশে তাকে বদলি করা হয়েছে

কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ক্যাম্প ইনচার্জ (সিআইসি) এর দায়িত্বে নিয়োজিত শামীমুল হক পাভেলকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রাণালয়। সোমবার (২ সেপ্টেম্বর) সকালে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একটি আদেশে তাকে প্রত্যাহার করা হয়।

দুই বছর ধরে তিনি উখিয়ার কুতুপালং মধুরছড়া ৩-৪ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ইনচার্জ হিসাবে দায়িত্বপালন করে আসছিলেন।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন জানিয়েছেন, ‘‘জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একটি আদেশে উখিয়ার কুতুপালং মধুরছড়া ৩-৪ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ইনচার্জ শামীমুল হক পাভেলকে বদলি করা হয়েছে ঢাকায়। সেখানে বিমানবন্দর এক্সটেনশনের উপ-প্রকল্প পরিচালক পদে তাকে বদলি করার কথা আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে।"

ঢাকা ট্রিবিউনকে জেলা প্রশাসক আরও বলেন, ‘‘শুনেছি ক্যাম্পের অভ্যন্তরীণ কিছু কারণ রয়েছে। বিশেষ করে গত ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মহাসমাবেশ করার অনুমতির একটি আবেদনের বিষয়ে তিনি কাউকে কিছু জানাননি।’’

রোহিঙ্গা সমাবেশের অনুমতি দেয়ার কারণেই বদলি কিনা জানতে চাওয়া হলে ঢাকা ট্রিবিউনকে শামীমুল বলেন, "বিষয়টি সত্য নয়। আমি সঠিকভাবে দায়িত্বপালন করে এসেছি। গত ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গা নেতা মুহিব উল্লাহ স্বাক্ষরিত একটি আবেদন আমার কাছে নিয়ে আসেন। স্বাভাবিকভাবে কেউ আবেদন নিয়ে আসলে সেটি গ্রহণ করা আমার দায়িত্ব। তাই আমি সেটি গ্রহণ করে ৩-৪ ঘণ্টার ভেতর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছিলাম। ঊধ্বর্তন কর্তৃপক্ষ আমাকে কিছুই বলেননি। তাই আমিও রোহিঙ্গাদের অনুমতির বিষয়ে কিছু বলেনি। এরই মাঝে রোহিঙ্গারা সমাবেশ করে। এর বেশি কিছু না।’’

তিনি আরও বলেন, ‘‘রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দুই বছর ধরে চাকরি করছি। নিয়ম অনুযায়ী আমাকে বদলি করা হয়েছে। অফিস যখন চাইবে, তখনই চলে যাব।’’

এবিষয়ে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. আবুল কালাম ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘‘শুধু পাভেলই নন, একইসঙ্গে ৭জন সিআইসিকে বদলি করা হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ীই তাদের বদলির আদেশ দিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। রোহিঙ্গাদের সমাবেশের কারণে তাকে বদলি করার বিষয়টি সত্য নয়।’’